ছেলের চিকিৎসা চালাতে ঘরভিটা বন্ধক দিলেন সেই মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী

আবুল হাসনাত মো. রাফি আবুল হাসনাত মো. রাফি , ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ১১:৫২ পিএম, ১৬ এপ্রিল ২০২১

শেষ পর্যন্ত ছেলের চিকিৎসার টাকা যোগাতে ঋণ নিয়ে উঠানো ঘরটি ও ঘরের জায়গা বন্ধক দিয়ে দিয়েছেন সেই প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী জুহেরা বেগম। তার অসুস্থ ছেলে মুসলিম মিয়া ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার উত্তর সুহিলপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়া দেশ স্বাধীন হওয়ার পাঁচ বছর পর স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রেখে মারা যান। স্বামী বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার মৃত্যুর পর এই দুই সন্তানকে নিয়ে স্ত্রী জুহেরা হয়ে পড়েন দিশেহারা। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তখন বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার পরিবারের বসবাস করার মতো নিজের বাসস্থান ছিল না। থাকতেন স্থানীয় ভূঁইয়া বাড়িতে আশ্রয়ে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার মৃত্যুর পর স্ত্রী জুহেরা বেগম শুরু করেন জীবন-জীবিকার যুদ্ধ। অন্যের বাড়িতে আশ্রয়ে থেকে এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে কাজ করে ছোট দুই সন্তানকে নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন নিজের সংসার। এভাবেই কেটে যায় দীর্ঘদিন। তবে পড়াশোনা করাতে পারেননি দুই সন্তানকে।

একমাত্র মেয়েকে গ্রামবাসীর সহযোগিতায় বিয়ে দেন। একমাত্র ছেলে মুসলিম মিয়া (৪৫) সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালিয়ে সংসারের হাল ধরেছিলেন। মুসলিম মিয়াও বিয়ে করেছেন। তার রয়েছে তিন মেয়ে ও দুই ছেলে। জুহেরা বেগম স্বামীর মুক্তিযোদ্ধার ভাতার টাকা জমিয়ে এক শতাংশ জায়গা কিনেছেন। ওই জায়গায় ৩ লাখ টাকা ঋণ করে নিজেরা বসবাস করতে একটি ঘর তুলেছেন। মুক্তিযোদ্ধার ভাতার যে টাকা পান সেই টাকার একটি অংশ ঘরের ঋণ হিসেবে পরিশোধ করে যাচ্ছেন।

ঋণ করে মাথা গোঁজার ঠাই হতে না হতেই আবার অশনিসংকেত নেমে আসে জুহেরা বেগমের পরিবারে। তার একমাত্র ছেলে মুসলিম মিয়া পাইলসে আক্রান্ত হন। সেই পাইলস ইনফেকশন হয়ে এখন ক্যান্সারে পরিণত হয়েছে। ছেলের ক্যান্সারের চিকিৎসা করাতে শেষ সম্বল ঋণ নিয়ে তৈরি করা ঘর ও ভিটা স্থানীয় একজনের কাছে বন্ধক রেখে দেড় লাখ টাকা নিয়েছেন।

jagonews24.com

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ক্যান্সার ধরা পড়ার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজি বিভাগের ডা. আবু তাহেরের অধীনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন। শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) তাকে কেমোথেরাপি দিতে নতুন করে আবার জাতীয় ক্যান্সার ইন্সটিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। এখন অপারেশন করাতে প্রয়োজন প্রায় তিন লাখ টাকা।

কিন্তু এই অপারেশন করার সক্ষমতা নেই মুসলিম মিয়ার। সিএনজি চালানো বন্ধ রয়েছে তার। স্ত্রী, মা জুহেরা বেগম, পাঁচ সন্তানসহ আটজনের পরিবারে উপার্জনকারী কেউ না থাকায় খেয়ে বেঁচে থাকাই কষ্টকর। বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার স্ত্রী জুহেরা বেগম ৭৭ বছর বয়সে আবার এলাকার মানুষের বাড়ি বাড়িতে কাজ শুরু করেন। পুনরায় গত দেড় বছর ধরে তিনি মানুষের বাড়িতে কাজ করে ছেলে মুসলিম মিয়ার চিকিৎসার খরচ ও পরিবারের খরচ চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই বিষয় প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার স্ত্রী জুহেরা বেগম বলেন, ‘কিছু করার নেই। এখন আমি মানুষের বাড়িতে কাজ না করলে কে খাওয়াবে? আমার জীবনটাই যুদ্ধের। ছেলে সিএনজি চালিয়ে সংসারের হাল ধরেছিল। কিন্তু সে নিজেই এখন অসুস্থ। কেউ সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়নি। তাই ঋণ নিয়ে তৈরি করা ঘর ও ভিটার দলিল দিয়ে টাকা নিয়ে ছেলেকে ঢাকায় চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছি।’

জুহেরা বেগমের একমাত্র ছেলে মুসলিম মিয়া বলেন, ‘নিজের মা মানুষের বাড়িতে কাজ করবে তা সন্তান হিসেবে দেখতে খুব কষ্ট লাগে। কিন্তু আটজনের সংসারে আয় করার মতো কেউ নেই। ঋণের টাকা এখনো পরিশোধ করতে পারিনি, এরই মধ্যে এই বিপদে ভিটাসহ ঘরটি বন্ধক দিয়ে চিকিৎসার টাকা জোগাড় করতে হচ্ছে।’ তিনি বিত্তবানদের কাছে সহায়তা কামনা করেন।

সুহিলপুর ইউনিয়নের পরিষদ চেয়ারম্যান আজাদ হাজারী আঙ্গুর বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার পরিবারের বিষয়টি আমি শুনেছি। তারা আমাকে কিছু জানায়নি। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হওয়ায় আমি আমার সাধ্যমতো সহায়তা করার চেষ্টা করব।’

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পঙ্কজ বড়ুয়া বলেন, ‘বিষয়টি অত্যন্ত মানবিক। তাদের পরিবারের একজন যোগাযোগ করেছিল। আমি সমাজ সেবার মাধ্যমে সহায়তার আবেদন করতে বলেছি, তারা আবেদন করেছে। সহায়তা সংক্রান্ত জেলার পরবর্তী সভায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে। আমি তাদের পাশে সার্বক্ষণিক থাকার চেষ্টা করব।’

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি বীর মুক্তিযোদ্ধা নদু মিয়ার স্ত্রী জুহেরা বেগম মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করে সন্তানের চিকিৎসা চালানোর কথা তুলে ধরে সংবাদ প্রকাশ করে জাগোনিউজটুয়েন্টিফোরডটকম।

এমআরআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]