কালবৈশাখীতে ঘর উড়ে গেছে, মর্জিনাদের রাত কাটছে রাস্তায়

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি লালমনিরহাট
প্রকাশিত: ০৫:৪৫ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০২১

‘ঝড়ে ঘরদুয়ার উড়ি গেছে। আমি ঘরে থাকতে পারি না। আমাক জায়গা করি দেও। এই রাস্তায় থাকতে পারি না। আমার কাহ নেই, খাওয়ার কষ্ট। আট বছর হলো স্বামী মারা গেছে কিন্তু আইজো ভাতা পাই না। অনেক দুঃখ-কষ্ট নিয়ে এই রাস্তায় ঘর করি পড়ি আছি। আমাক খাসের জমিত বাড়ি করি দেও। টাকা-পয়সা নাই। দিন যায় রাত যায় উপাস থাকি। এহন কীভাবে ঘর ঠিক করি?’

এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাশীরাম মুন্সীর বাজার এলাকার মৃত শামসুর হকের স্ত্রী মর্জিনা বেওয়া। ১০ বছর আগে স্বামীকে হারিয়ে তিস্তা নদীর বাঁধের রাস্তায় কোনোমতে বসবাস করছেন। দুই সন্তান থাকলেও তারা মায়ের খোঁজ রাখেন না। বিয়ে করে স্ত্রীকে নিয়ে অন্য এলাকায় বসবাস করেন।

jagonews24

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, চারদিন আগে কালবৈশাখীতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে পড়ে যাওয়া ঘরবাড়ি টাকার অভাবে মেরামত করতে পারেনি অসহায় পরিবারগুলো। অনেকে দাদন ব্যবসায়ীর কাছে টাকা নিয়ে ঘর মেরামত করছেন। ঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তিস্তা নদীর বাঁধে রাস্তায় বসবাসরত পরিবারগুলো।

গত শুক্রবার (১৬ এপ্রিল ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ওপর দিয়ে কালবৈশাখী বয়ে যায়। পাঁচ মিনিটের ঝড়ে ৩ থেকে ৪ গ্রামের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে বেশিরভাগ অসহায় পরিবারের ঘরবাড়ি ভেঙে পড়ে। ঝড়ে ইরি-বোরো ধান, ভুট্টা, গাছপালা ও বাড়িঘরের ব্যাপক ক্ষতি হয়।

jagonews24

উপজেলার চর কাশীরাম গ্রামের ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত দিনমজুর ফরিদ মিয়া (৫৫) কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘হুরকায় (ঝড়ে) ঘর ভাংগি গেছে। এখন কী করি খাই?’

ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত নাছিমা বেগম (৩৫) বলেন, ‘ঝড়ে টিনের চালা ভাংগি গেছে। মানুষের কাছে লাভের ওপর টাকা নিয়া ঘর ঠিক করতাছি। হামরা এই বাঁধের রাস্তায় বাড়ি করি আছি।’

jagonews24

তুষভান্ডার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নুর ইসালাম জানান, ঝড়ে তুষভান্ডার ইউনিয়নের কয়েকটি ওয়ার্ডে বেশকিছু বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এসব পরিবারের তালিকা করা হয়েছে। পরিবারগুলো দ্রুত সহায়তা পাবে।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান বলেন, ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য ত্রাণ শাখায় তালিকা পাঠানো হয়েছে। সহায়তা এলে দ্রুত এসব পরিবারে পৌঁছে দেয়া হবে।

রবিউল হাসান/এসআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]