সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৫৮ বস্তা চাল জব্দ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নড়াইল
প্রকাশিত: ০৮:০৭ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০২১
ফাইল ছবি

সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৫৮ বস্তা চাল জব্দ করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয়রা। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে কালিয়া উপজেলার মাউলি ইউনিয়নের মহাজন বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

পরে জব্দকৃত চাল চাউল সরকারি কোন গুদামের কিনা তা যাচাইয়ের জন্য কালিয়া উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে মাউলি ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলামের হেফাজতে রাখা হয়েছে।

মাউলি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মহাজন বাজারের ব্যবসায়ী প্রশান্ত কুমার স্বর্ণার ও উত্তম সাহা জানান, দুপুর দেড়টার দিকে এক ভ্যানচালক ১৭ বস্তা চাল নিয়ে বাজারের সমশ্বের সাহার দোকানে বিক্রি করতে আনেন। বিষয়টি সন্দেহ হলে ভ্যানচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করলে চালগুলো বিপ্লব বিশ্বাসের বলে জানান।

নড়াগাতি থানা পুলিশ খবর পেয়ে মহাজন বাজারে পৌঁছে বিভিন্ন দোকান তল্লাসি চালিয়ে মনসা ট্রেডার্সের টিনের দোকান থেকে আরও ৪১ বস্তা চাউল, বস্তাসেলাই কনরা ভ্রমর, খালি বস্তা, সুতলি এবং চাউল মাপার যন্ত্র উদ্ধার করে। এলাকাবাসীর অভিযোগ সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কালো বাজারে বিক্রি করতে আনা হয়েছিল।

নড়াগাতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, বিভিন্ন কোম্পানির সিলযুক্ত ৫৮ বস্তা চাল স্থানীয় জনগণ আটক করে আমাদের খবর দেন। আটককৃত চালগুলো উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বড়দিয়া খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসিএলএসডি) দিবাকর বিশ্বাস বলেন, জব্দকৃত চাল সরকারি গুদামের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় যে চাল দেয়া হচ্ছে ওই চালের স্যাম্পলের মিল নেই।

ব্যবসায়ী বিপ্লব বিশ্বাস দাবি করেন, এ চাল খুলনা থেকে ব্যবসার জন্য বাজারে আনা হয়েছে। খরিদের রশিদও আমার কাছে আছে। তিনি দাবি করেন, এটা সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতার চাল নয়। বাজারের কিছু ব্যবসায়ী হেয় প্রতিপন্ন করতে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে প্রশাসনকে খবর দিয়েছে।

কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুদা বলেন, এ চাল সরকারি কোন খাদ্যগুদামের কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য সাউলি ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের জিম্মায় রাখা হয়েছে।

হাফিজুল নিলু/আরএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]