আগেভাগেই বাজারে মিলছে গোপালভোগ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৫:৩৬ পিএম, ০৯ মে ২০২১ | আপডেট: ০৬:১৪ পিএম, ০৯ মে ২০২১

বাজারে নিরাপদ ও পরিপক্ব আম নিশ্চিত করতে গাছ থেকে আম নামানোর সময় বেঁধে দিয়েছে রাজশাহী জেলা প্রশাসন। এরপরও বেঁধে দেয়া সময় উপেক্ষা করে রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা ও বাজারে ঝুড়ি সাজিয়ে পাকা আম বিক্রি করতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, রাজশাহীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্ট-মনিচত্বর, ভদ্রা মোড়, লক্ষ্মীপুর ও কোর্ট এলাকায় ভ্যানের ওপর ঝুড়িতে করে গোপালভোগ আম বিক্রি করছে। প্রতি কেজি ১০০ থেকে ১৫০ টাকা দাম হাঁকছেন বিক্রেতারা।

আম বিক্রেতা রিপন জানান, গাছে আম পেকে গেছে। তাই বাগান মালিকের কাছ থেকে তিনি কিনে এনে বাজারে বিক্রি করছেন।

তিনি আরও জানান, গাছ থেকে আম নামানোর বেঁধে দেয়া সময়সীমার বিষয়ে তিনি জানেন না। আম পেকে যাওয়ায় বাজারে এনেছেন। সরকার নিষেধ করলে আর বেচবেন না।

রাজশাহী জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, গত বছর যেসব জাতের আম যেদিন থেকে নামানো শুরু হয়েছিল, এবারও সেই তারিখে ওই জাতের আম নামানো যাবে। এর মধ্যে সব ধরনের গুটি জাতের আম নামানো যাবে আগামী ১৫ মে থেকে।

jagonews24

উন্নতজাতের আমগুলোর মধ্যে গোপালভোগ ২০ মে, লক্ষণভোগ বা লখনা ও রাণীপছন্দ ২৫ মে এবং হিমসাগর বা খিরসাপাত ২৮ মে থেকে নামিয়ে হাটে তুলতে পারবেন বাগানমালিক ও চাষিরা। এছাড়া ৬ জুন থেকে ল্যাংড়া, ১৫ জুন থেকে ফজলি ও আম্রপালি এবং ১০ জুলাই থেকে আশ্বিনা ও বারি আম-৪ নামানো যাবে। এর আগে এসব আম নামানো যাবে না।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিজিত সরকার বলেন, ‘বিষয়টি নজরদারি করার জন্য অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম জেলা প্রশাসনের সব নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্দেশনা দিয়েছেন। দ্রুতই তারা অভিযানে নামবেন। সময়ের আগে কোনো আম বাজারে বিক্রি করতে দেয়া হবে না।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (৬ মে) দুপুরে কৃষিবিদ, ফল গবেষক, চাষি ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি সভা করে জেলা প্রশাসন আম নামানোর তারিখ নির্ধারণ করে।

ফয়সাল আহমেদ/এসজে/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]