ভিজিডি কার্ড নিয়ে দ্বন্দ্ব, চাচাতো ভাইদের হামলায় যুবক নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৩:০৪ পিএম, ১৯ মে ২০২১

বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় দুস্থদের খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির (ভিজিডি) কার্ড নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে চাচা ও চাচাতো ভাইদের হামলায় রামিন মৃধা (২১) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

বুধবার (১৮ মে) সকালে এ ঘটনায় নিহত রামিন মৃধার স্ত্রী রুমা বেগম বাদী হয়ে গৌরনদী মডেল থানায় হত্যা মামলা করেছেন। মামলার পর অভিযান চালিয়ে নিহত রামিন মৃধার চাচাতো ভাই তোফাজ্জেল মৃধাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নিহত রামিন মৃধা খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কমলাপুর গ্রামের সান্টু মৃধার ছেলে। অভিযুক্তরা হলেন- নিহত রামিন মৃধার চাচা মিন্টু মৃধা (৪৫), চাচাতো ভাই রাহাত ওরফে তুহিন মৃধা ও তোফাজ্জেল মৃধা (১৯)। নিহত রামিন মৃধা ও তার চাচার বাড়ি একই গ্রামে পাশাপাশি ।

স্থানীয় সত্রে জানা গেছে, রামিন মৃধা বাবা সান্টু মৃধা দেশের বাইরে থাকেন। তিনি সংসারের তেমন একটা খোঁজখবর নেন না। তাদের পাশের বাড়িতে থাকেন রামিন মৃধার চাচা মিন্টু মৃধা, চাচাতো ভাই রাহাত মৃধা ও তোফাজ্জেল মৃধা। তাদের আর্থিক অবস্থাও খুব একটা ভালো না। এ কারণে খাঞ্জাপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) মো. মন্টু হাওলাদার সম্প্রতি ওই দুই পরিবারকে ভিজিডির একটি কার্ড দেন।

jagonews24

কথা ছিল ওই কার্ড দিয়ে একবার চাল তুলবেন মিন্টু মৃধা। এর পরেরবার চাল তুলবেন রামিন মৃধার পরিবার। কিন্তু কয়েকদিন আগে মিন্টু মৃধা চাল উত্তোলনের পর ভিজিডি কার্ডটি তার কাছে রেখে দেন। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে কার্ড চাইতে গেলে মিন্টু মৃধা ও তার ভাতিজা রামিন মৃধার মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে চাচা মিন্টু মৃধা ও চাচাতো ভাই রাহাত ও তোফাজ্জেল মিলে লাঠিসোটা এবং ধারালো অস্ত্র দিয়ে রামিন মৃধাকে আঘাত করেন। এতে গুরুতর আহত হন রামিন মৃধা ।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় রামিন মৃধাকে প্রথমে গৌরনদী ও পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রামিন মৃধাকে ঢাকায় পাঠানো হয়। রাতে সেখানে মৃত্যু হয় রামিন মৃধার।

গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. তৌহিদুজ্জামান বলেন, ‘সকালে এ ঘটনায় নিহত রামিন মৃধার স্ত্রী রুমা বেগম বাদী হয়ে গৌরনদী মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলার পর অভিযান চালিয়ে রামিন মৃধার চাচাতো ভাই তোফাজ্জেল মৃধাকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। মামলার অপর দুই আসামি মিন্টু মৃধা ও তার ছেলে রাহাত মৃধা আত্মগোপন করেছেন। তাদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’

সাইফ আমীন/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]