বিষপানে কিশোরীর মৃত্যু, প্ররোচনার অভিযোগে প্রেমিকসহ ৩ জন গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৯:২২ পিএম, ১০ জুন ২০২১
প্রতীকী ছবি

বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় একটি স্কুলের দশম শ্রেণির এক ছাত্রের (১৭) সঙ্গে নবম শ্রেণি পড়ুয়া ছাত্রীর (১৫) প্রায় দুই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। সম্প্রতি বিষয়টি জানাজানি হলে অভিভাবকরা তাদের বকাঝকা করেন। উভয়ের পরিবার দুজনকে কথা বলতে ও দেখা করতে কঠোরভাবে নিষেধ করেন।

পরিবারের কঠোর অবস্থানের কারণে স্কুলের ঘনিষ্ঠ বন্ধু-বান্ধবীদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলে ওই কিশোর-কিশোরী। তারা দুজনকে ‘প্রয়োজনে একসঙ্গে’ বিষপানে আত্মহত্যার প্ররোচনা দেয়। তাদের প্ররোচনায় কিশোরী বিষপান করে এবং মারা যায়। তবে বিষপান থেকে বিরত থাকে কিশোর। পরে সেই কিশোরসহ তিনজনকে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে গ্রেফতার করে সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনাটি গৌরনদীর মেদাকুল বিএমএস ইনস্টিটিউশনের পাশের এলাকার। প্রাণ হারানো কিশোরী ওই ইনস্টিটিউশনে লেখাপড়া করত।

এ ঘটনায় বাদী হয়ে গৌরনদী থানায় প্রেমিক এবং এক বন্ধু ও এক বান্ধবীকে আসামি করে মামলা করেছেন ওই কিশোরীর মা। মামলায় তাদের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ আনা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) দুপুরে ওই মামলায় তিন আসামিকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।

এজাহারে অভিযোগ করা হয়, কিশোরীটির সঙ্গে ওই কিশোরের প্রায় দুই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। বিষয়টি সম্প্রতি এলাকায় জানাজানি হওয়ার পর কিশোরীর পরিবার সেই কিশোরের বাবার কাছে বিষয়টি জানিয়ে বিচার দাবি করে। পাশাপাশি নিজেদের মেয়েকে বকাঝকা করে। পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অবস্থায়ই প্রেমের সর্ম্পক মেনে নেয়া হবে না বলে মেয়েটিকে সতর্ক করা হয়। এরপর ওই কিশোরী গোপনে তার প্রেমিক এবং বন্ধু-বান্ধবীর সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি নিয়ে কথা বলে। দুই বন্ধু-বান্ধবী বিষপান করার প্ররোচনা দেয় প্রেমিক যুগলকে।

গত মঙ্গলবার (৮ জুন) সকালে ওই কিশোরী প্রাইভেট পড়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়। এরপর স্কুলে যায়। সেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিল প্রেমিক ও মেয়ে বন্ধুটি। সেখানে বন্ধুদের প্ররোচনায় কিশোরীটি বিষপান করে। এতে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রেমিক ও দুই বন্ধু নিকটস্থ হাসপাতালে না নিয়ে পার্শ্ববর্তী মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় তাকে। তখন চিকিৎসক ওই কিশোরীকে মৃত ঘোষণা করেন। সন্দেহ হলে প্রেমিক ও দুই বন্ধুকে আটক করে মাদারীপুর পুলিশে সোপর্দ করেন চিকিৎসকরা।

গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. তৌহিদুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে কিশোরীটির মরদেহ গৌরনদী নিয়ে আসা হয়। পাশাপাশি আসামি তিনজনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। এ ঘটনায় বুধবার (৯ জুন) দিবাগত রাতে থানায় মামলা করেন ওই ছাত্রীর মা। বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে প্রেমিকসহ তিনজনকে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। আদালত তিনজনকে যশোর কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক/এসআর/এইচএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]