বরিশালে বিরল রোগ নিয়ে শিশুর জন্ম, দুশ্চিন্তায় পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৩:২৯ এএম, ১১ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৮:০৭ এএম, ১১ জুন ২০২১

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বিরল রোগ নিয়ে এক ছেলে শিশুর জন্ম হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) ভোরে হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে মুন্নি বেগম নামে এক গৃহবধূ ওই শিশুর জন্ম দেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মুন্নি বেগম ভোলার কলাকোপা গ্রামের দরিদ্র রিকশাচালক জাফর হোসেনের স্ত্রী।

নবজাতকের স্বজনরা জানান, জাফর হোসেন ও মুন্নি বেগম দম্পতির এটি দ্বিতীয় সন্তান। তাদের ছয় বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে। জন্মের পর নবজাতক শারীরিক জটিলতা দেখে তারা চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। চিকিৎসকরা নবজাতকের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। যদিও দরিদ্র রিকশাচালক বাবার পক্ষে সেটা সম্ভব নয়। তাই নবজাতককে বাঁচিয়ে রাখতে সরকার ও দেশের হৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে সহায়তা কামনা করেছেন তারা।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ও প্রসূতি বিভাগের প্রধান ডা. খুরশিদ জাহান হক জানান, বৃহস্পতিবার ভোররাতে মুন্নি বেগমের প্রসব বেদনা ওঠে। এরপর স্বাভাবিক ডেলিভারির জন্য অপেক্ষা করা হয়। তবে রোগীর কিছুটা জটিলতা দেখা দিলে চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নবজাতকের জন্ম হয়। জন্মের পর দেখা যায়, নবজাতকের মাথার আকার স্বাভাবিকের চেয়ে অনেকটা বড়। চোখ ও নাক নেই। তাছাড়া ঠোট ও ঠোটের তালু কাটা রয়েছে। বর্তমানে ওই নবজাতক চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছে। তবে তার মা সুস্থ আছেন।

jagonews24

ডা. খুরশিদ জাহান হক বলেন, স্বজনরা জানিয়েছেন রোগীকে আগে আল্ট্রাসনোগ্রাম করিয়েছিলেন। তবে সেখানে নবজাতকের এসব এ তথ্য জানানো হয়নি বলে তারা অভিযোগ করেন।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার সাহা জানান, নবজাতকটি বিরল রোগ ক্রেনিয় ফেসিয়াল নেলফরমেশনে আক্রান্ত। এ ধরনের রোগে আক্রান্ত রোগী খুব বেশি দেখা যায় না। জিনগত কারণে এ ধরনের রোগ দেখা দেয়। এ ধরনের রোগী খুব বেশি দিন বাঁচার নজির নেই। তারপরও রোগীর স্বজনদের প্রতি আমার পরামর্শ থাকবে দ্রুত বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা।

এআরএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]