বরিশালে বাসদের কর্মসূচিতে হামলার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৮:৩৯ পিএম, ১৪ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৮:৫২ পিএম, ১৪ জুন ২০২১

বরিশাল নগরীতে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) কর্মসূচিতে হামলার অভিযোগ উঠেছে। বলা হচ্ছে, সিটি করপোরেশনের ২৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ সাইদুর রহমান জাকির ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুর রহমান মনির মোল্লার নেতৃত্বে এ হামলা চালানো হয়। হামলায় বাসদের অঙ্গ সংগঠন ছাত্র ফ্রন্ট ও শ্রমিক ফ্রন্টের অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হন বলে জানান সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

সোমবার (১৪ জুন) বেলা ১১টার দিকে নগরীর রূপাতলী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন গোলচত্বর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার নগরীতে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বাসদ।

বাসদ বরিশাল জেলার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী অভিযোগ করে বলেন, ২৪ ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের রূপাতলী এবং সাগরদীর রাস্তাঘাটে বৃষ্টি হলে হাঁটুপানি জমে যায়। তাছাড়া ভাঙা রাস্তায় রিকশা ও অটোরিকশা উল্টে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। জনগণের দুর্ভোগ নিরসনে ওয়ার্ড কাউন্সিলররা সাড়ে তিন বছরে কোনো উদ্যোগ নেননি। এ কারণে রূপাতলী-সাগরদীর রাস্তা-ড্রেন সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে আজ বেলা ১১টার দিকে বাসদের উদ্যোগে মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের জন্য নেতাকর্মীরা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন গোলচত্বর এলাকায় জড়ো হন।

এ সময় সিটি করপোরেশনের ২৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ সাইদুর রহমান জাকির ও তার ছোট ভাই মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুর রহমান মনির মোল্লার নেতৃত্বে ১০-১৫ জন সন্ত্রাসী হামলা চালায়।

তিনি জানান, হামলায় ছাত্র ফ্রন্টের দফতর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ও শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামসহ প্রায় ১০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় হামলাকারীরা মানববন্ধনের ব্যানার কেড়ে নিয়ে যায়। তাদের তাণ্ডবে বাসদ নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। এরপরও বাসদ নেতাকর্মীরা একত্রিত হয়ে রূপাতলী গোলচত্বরে সমাবেশ করেন।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাসদের রূপাতলী এলাকার শ্রমিক ফ্রন্ট সভাপতি আবুল কালাম। সমাবেশ পরিচালনা করেন সংগঠনটির ২৫ নম্বর ওয়ার্ড সংগঠক নুরুল হক। বক্তব্য রাখেন বাসদ বরিশাল জেলার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট বরিশাল জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট বরিশাল মহানগর শাখার দফতর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, শ্রমিক ফ্রন্ট ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি শহিদ খান, রূপাতলী এলাকার সদস্য সুজন শিকদার, আনোয়ার মুন্সি, আনিস হাওলাদার প্রমুখ।

jagonews24

সমাবেশে বক্তারা এই ন্যক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা জানান। পাশাপাশি আগামীকাল বেলা ১১টার দিকে অশ্বিনী কুমার হল (টাউন হল) চত্বরে এই হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এছাড়া বক্তারা অবিলম্বে রূপাতলী-সাগরদীর সব রাস্তা সংস্কার,ড্রেন সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য জোর দাবি জানান।

সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল রূপাতলীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে হামলার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুর রহমান মনির মোল্লা জানান, নগরীর খানাখন্দ থাকা বিভিন্ন সড়ক সংস্কারে সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ সর্বাত্মক চেষ্টা করছেন। এরই মধ্যে নগরীর বেশ কয়েকটি এলাকার সড়ক সংস্কারকাজ শেষ হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় রূপাতলী এলাকার ভাসানী সড়কের সংস্কারকাজ কয়েক দিন আগে সিটি মেয়র নিজে এসে উদ্বোধন করেন। ওই সড়কের সংস্কারকাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। তবে বাসদ জনগণকে বিভ্রান্ত করতে এ কর্মসূচির ডাক দিয়েছিল। তাদের লিফলেটে ভাসানী সড়কের সংস্কারের দাবির কথা উল্লেখ ছিল। এ থেকে স্পষ্ট বোঝা যায়, বাসদ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে হাসিলের জন্য এই কর্মসূচির ডাক দিয়েছিল।

জাহিদুর রহমান মনির মোল্লা বলেন, কর্মসূচির আগে বাসদের কয়েকজন নেতাকর্মীর কাছে লিফলেটে ভাসানী সড়ক উল্লেখ থাকার কারণ জানতে চেয়েছিলাম আমি ও আমার বড় ভাই (ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাকির)। এ সময় বাসদের নেতাকর্মীরা উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। তাদের সঙ্গে আমাদের কথাকাটাকাটি হয়। এখন এটাই বাসদের পক্ষ থেকে হামলার নাটক সাজিয়ে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নুরুল ইসলাম জানান, রূপাতলী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন গোলচত্বর এলাকায় ঝামেলার কথা শুনে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু পুলিশ গিয়ে সব কিছুই স্বাভাবিক দেখতে পায়। তাছাড়া বাসদের পক্ষ থেকেও কোনো ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়নি। হামলার বিষয়টি সঠিক নয়।

সাঈফ আমীন/এসএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]