অজ্ঞান শিশু গৃহকর্মী পড়ে রইলো বাড়ির পাশে, সারা দেহে ব্লেডের আঘাত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ময়মনসিংহ
প্রকাশিত: ০৩:৪৪ পিএম, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় ৯ বছরের এক শিশু গৃহকর্মীকে তিনমাস ধরে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে আসমা আক্তার (৩৫) নামে এক নারীর বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) ওই শিশুকে অজ্ঞান অবস্থায় তার বাড়ির পাশে ফেলে যাওয়া হয়। পরে পুলিশের সহায়তায় পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

অভিযুক্ত আসমা আক্তার উপজেলার কুশমাইল ইউনিয়নের পানের ভিটা গ্রামের মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াজেদ মিয়ার মেয়ে। আসমা আক্তার মমেক হাসপাতালে কর্মরত। তিনি নগরীর চরপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করেন।

ফুলবাড়িয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জোতিষ চন্দ্র জাগো নিউজকে বলেন, ওই শিশুকে বৃহস্পতিবার রাতে তার পরিবারের লোকজন থানায় নিয়ে আসার পর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার সকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশুর পরিবারকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি যেহেতু সদরের, তাই কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। তারাই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

নির্যাতনের শিকার গৃহকর্মীর চাচা বলেন, বড় ভাইয়ের সংসারে অভাব অনটনের কারণে মাসিক এক হাজার টাকা বেতনে আনুমানিক তিন মাস আগে আসমার বাসায় আমার ভাতিজিকে কাজে দেওয়া হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন অজুহাতে তাকে অমানবিক নির্যাতন করা হতো।

তিনি আরও বলেন, এভাবে তিন মাস নির্যাতনের পর বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) নির্যাতনের সময় সে অজ্ঞান হয়ে পড়লে আসমা অন্য একজন নারী দিয়ে ওই দিন বিকেল ৫টার দিকে ওই শিশুকে আমাদের বাড়ির পাশে ফেলে রেখে চলে যান। পরে বাড়ির আশপাশের লোকজন ওই শিশুকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পরিবারে বিষয়টি জানায়। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে ফুলবাড়িয়া থানায় নিয়ে যাই। পরে পুলিশের সহায়তায় ভাতিজিকে ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি।

শিশুটির চাচার অভিযোগ, তার পুরো শরীরে ব্লেডের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এছাড়া গোপনাঙ্গেও ব্লেডের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফারুক হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত কোনো অভিযোগ দেয়নি। ফুলবাড়িয়া থানা থেকে বিষয়টি জানানোর পর রাতেই অভিযুক্ত নারীকে আটকের জন্য অভিযান চালিয়েছি। তবে তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

মঞ্জুরুল ইসলাম/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]