অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগ, হাসপাতালে ভাঙচুর-সড়ক অবরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৯:৫৮ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

সিলেট নগরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় ফলজানু বেগম (৭০) নামে এক নারীর মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে। এর জেরে হাসপাতালের আইসিউতে ভাঙচুর চালান রোগীর স্বজনরা। এ সময় হাসপাতালের নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ বাঁধে। এতে উভয়পক্ষের আটজন আহত হন।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

মারা যাওয়া ফুলজান বেগম সিলেট জেলা ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান-পিকআপ শ্রমিক সমিতির সহ-সম্পাদক মাহবুব আলমের মা।

পরে বিকেলে নগরের পাঠানটুলায় এলাকায় সড়কে কয়েকটি ট্রাক আড়াআড়িভাবে রেখে ঘণ্টাব্যাপী বিক্ষোভ করেন মৃতের স্বজন ও সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ড ভ্যানের শ্রমিকরা। এতে সড়কের উভয়পাশে শত শত গাড়ি আটকে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

jagonews24

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ফুলজান বেগম দিন পাঁচেক আগে পেটে টিউমার নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। সোমবার তার অস্ত্রোপচার হয়। অস্ত্রোপচারের পর তিনি হার্ট অ্যাটাক করলে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার দুপুরে তিনি মারা যান।

ফুলজান বেগমের ছেলে জেলা ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান-পিকআপ শ্রমিক সমিতির সহ-সম্পাদক মাহবুব আলমের অভিযোগ করে বলেন, আমার মায়ের ভুলভাবে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। এছাড়া তিনদিন আগে মারা গেলেও তাকে তিন দিন আইসিইউতে রেখে মোটা অংকের বিল নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডা. আবেদ হোসেন বলেন, ওই নারী পেটে টিউমার নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। আমরা প্রথমে ভেবেছিলাম এটা গাইনি সমস্যা। তবে সোমবার অস্ত্রোপাচার শুরুর পর দেখা যায়, টিউমারটি তার নাড়িভূড়ির মধ্যে। পরে জেনারেল সার্জনরা এই অস্ত্রোপচার করেন।

jagonews24

অধ্যক্ষ আরও বলেন, অস্ত্রোপচারের পর পর্যবেক্ষণ কক্ষে থাকা অবস্থায় ওই নারী হার্ট অ্যাটাক করেন। পরে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি শংকটাপন্ন অবস্থায় ছিলেন। যা প্রতি মূহূর্তে আমরা রোগীর স্বজনদের জানিয়েছি।

মৃত নারীকে আইসিইউতে রেখে স্বজনদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা আদায়ের অভিযোগ পুরোপুরি মিথ্যা দাবি করে অধ্যক্ষ বলেন, এভাবে রোগীর মৃত্যুর পর যদি অভিযোগ তোলা হয় এবং ভাঙচুর চালানো হয় তবে তো চিকিৎসকরা আর জটিল কোনো রোগীর চিকিৎসায় উৎসাহ পাবেন না। বরং রোগীর অবস্থা শংকটাপন্ন হলে এড়িয়ে যাবেন।

নগরের জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হুদা খান বলেন, এক শ্রমিক নেতার মায়ের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে তার স্বজন ও হাসপাতালের নিরাপত্তাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং কিছু ভাঙচুর হয়। খবর পেয়ে দ্রুত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। এরপর সড়ক অবরোধ করলে পুলিশ তাদের বুঝিয়ে সরিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে।

ছামির মাহমুদ/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]