বিএনপি মুখে যা বলে তা মনে ধারণ করে না: টিপু মুনশি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রংপুর
প্রকাশিত: ০৪:১৯ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিএনপি তাদের নেতাকে (জিয়াউর রহমান) মুখে মুক্তিযোদ্ধা বললেও মনে তা ধারণ করে না বলে মন্তব্য করেছেন বীরমুক্তিযোদ্ধা বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রংপুর টাউন হল মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি কথা সংবলিত ‘স্মৃতিতে রণাঙ্গন’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি কোনো অবস্থায়ই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের নয়। তারা মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে কথা বলে না। তারা ঢালাওভাবে শুধু সরকারের বাজেটের বিরোধিতা করে।

টিপু মুনশি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কষ্ট লাঘবে সম্মানী ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছে। এটা নিয়ে তো মুক্তিযোদ্ধার দল দাবিদার বিএনপি কোনো কথা বলেনি।

একাত্তরের সম্মুখযুদ্ধে পরাজিতরা বাংলাকে পাকিস্তান করার স্বপ্নে বিভোর হয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে দাবি করে টিপু মুনশি বলেন, ১৫ আগস্টের পর জয়বাংলার পরিবর্তে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ স্লোগান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ওপর আঘাত। যে স্লোগান দিয়ে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ করলাম। ১৫ আগস্ট মুহূর্তের মধ্যে সেই জয়বাংলা স্লোগান হয়ে গেলো বাংলাদেশ জিন্দাবাদ। এটা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ওপর করা প্রথম আঘাত।

jagonews24

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে পাকিস্তান প্রীতিকে জাগিয়ে রেখে বাংলাদেশকে ২১ বছর পেছনে ফেলে রাখা হয়েছিল। কিন্তু সেই বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই বাংলাদেশ উন্নয়নে বিশ্বের মডেল। পাকিস্তান এখন বাংলাদেশের চেয়ে সব সূচকে পেছনে পড়ে গেছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে একেকটি ইতিহাসের সাক্ষীর মৃত্যু ঘটছে। তাই স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস পরবর্তী প্রজন্মকে জানাতে হবে। বঙ্গবন্ধুর লেখা কারাগারের রোজনামচা, অসমাপ্ত আত্মজীবনীসহ তাকে নিয়ে লেখা যত বই আছে নতুন প্রজন্মসহ সকলকে তা পড়তে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

জেলা প্রশাসক আসিব আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল আলীম মাহমুদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু, জেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়ার রহমান সফি, সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মণ্ডল, প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহাবুব রহমান, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সরকার রফিক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জিতু কবীর/আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]