ঝুপড়ি থেকে টিনের ঘরে ভিক্ষুক মালেকা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ময়মনসিংহ
প্রকাশিত: ০৯:৩৭ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

ময়মনসিংহের ফুলপুরে পলিথিনের ঝুপড়িতে বসবাস করা ভিক্ষুক মালেকা বেগমকে (৬৫) টিনের ঘরে তুলে দিলেন থানার নির্বাহী কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল মামুন। ওসির এমন কাজকে প্রশংসা করছেন স্থানীয়রা।

বৃদ্ধা মালেকা উপজেলার রহিমগঞ্জ ইউনিয়নের ধন্তা গ্রামের মৃত হজরত আলীর স্ত্রী। তিনি মানুষের বাড়িতে কাজ করার পাশাপাশি ভিক্ষা করে জীবন নির্বাহ করতেন।

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঘর পরিদর্শন শেষে ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন ওই বৃদ্ধাকে ঘরে তুলে দেন।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শীতেষ চন্দ্র সরকার, ব্যারিস্টার আবুল কালাম আজাদ, তাকওয়া অসহায় সেবা সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তপু রায়হানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, মাস খানেক আগে তাকওয়া অসহায় সেবা সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তপু রায়হান ওই বৃদ্ধাকে নিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। পরে বিষয়টি নজরে আসে ওসি আবদুল্লাহ আল মামুনের। পরে তপু রায়হানকে নিয়ে ওই বৃদ্ধার ঘরের ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নেন তিনি।

এ বিষয়ে তাকওয়া অসহায় সেবা সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তপু রায়হান জাগো নিউজকে বলেন, ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার পর বিষয়টি ওসির নজরে আসে। পরে ওসি সাহেবসহ আরও অনেকের সহায়তা নিয়ে বৃদ্ধা মালেকা বেগমকে ঘর তুলে দেই।

এ বিষয়ে বৃদ্ধা মালেকা বেগম জাগো নিউজকে জানান, প্রায় ১৫ বছর আগে স্বামী মারা গেছেন। স্বামীর রেখে যাওয়া আড়াই শতাংশ জমিতে দীর্ঘদিন ধরে পলিথিনের ঝুপড়িতে বসবাস করে আসছি। ওসি সাহেবের উদ্যোগে অনেকের সহায়তায় আজ একটা ঘর পেয়েছি।

এ বিষয়ে ফুলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিষয়টি জানতে পারি। পরে পোস্টদাতা তাকওয়া অসহায় সেবা সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তপু রায়হানের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিস্তারিত খবর নিয়ে ওই বৃদ্ধাকে ঘর তুলে দেয়ার উদ্যোগ নেই।

তিনি আরও বলেন, পরে বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকারের সঙ্গে আলোচনা করলে তিনিও দুই বান টিন দেন। এছাড়াও ব্যারিস্টার আবুল কালাম আজাদসহ স্থানীয় আরও অনেকের আর্থিক সহায়তায় ঘরে তুলে দেই।

মঞ্জুরুল ইসলাম/আরএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]