আ’লীগ নেতার পার্কে বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণ, আহত হারুনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৪:৫৭ পিএম, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১

বরিশালের গৌরনদীতে একটি পার্কের পরিত্যক্ত টিনের ঘরে বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণে আহত হারুন হাওলাদারের মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে ঢাকায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। হারুন হাওলাদার উপজেলার কটকস্থল-দক্ষিণ মাদ্রা এলাকার মৃত বারেক হাওলাদারের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, ফারিহা গার্ডেনটির মালিক গৌরনদী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান ফরহাদ মুন্সীর। ৩ ডিসেম্বর দিনগত রাতে পার্কের পরিত্যক্ত একটি টিনের ঘরে চেয়ারম্যানের অনুসারী মো. রায়হান, মো. কাওছার, হারুন হাওলাদারসহ কয়েকজন বোমা তৈরি করছিলেন। রাত সাড়ে ১২টার দিকে একটি বোমা বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। বিস্ফোরণে এলাকা প্রকম্পিত হয়। টিনের ঘরের ব্যাপক ক্ষতি হয়। পার্কের আশপাশের মানুষের মধ্যে ডাকাত আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

বোমার বিস্ফোরণে হারুন হাওলাদারসহ তিনজন গুরুতর আহত হন। তাদের সহযোগীরা বিস্ফোরণের আলামত সরিয়ে ফেলেন এবং চিহ্ন ধুয়ে-মুছে ঘরের মেঝে বালুর প্রলেপ দিয়ে ঢেকে রাখেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিস্ফোরিত বোমার মার্বেল, ছোট কয়েকটি লোহা, স্কচটেপ ও জর্দার কৌটার ঢাকনার অংশসহ বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করে।

আহত হারুন হাওলাদারের বোন নাছিমা বেগম বলেন, আমার ভাই হারুন হাওলাদার বুধবার বিকেলে ঢাকা যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন। শুক্রবার রাতে ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হয়। তখন তার দুই হাতের কুনুই বিচ্ছিন্ন ও মুখ ঝলসানো অবস্থায় দেখতে পান। তার সঙ্গে থাকা লোকজন চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ঢাকার দিকে রওয়ানা হন।

নাছিমা বেগম আরও বলেন, আমার ভাই ছাড়া আরও দুইজনকে আহত অবস্থায় দেখেছি। আমার ভাইয়ের সঙ্গে ওই দুজনেকও চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে জানতে পারি ভাইকে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। আজ সকালে খবর পাই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে।

bar-(2).jpg

এ বিষয়ে জানতে আওয়ামী লীগ নেতা ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান ফরহাদ মুন্সীর মোবাইল নম্বরে কয়েকবার ফোন দিলে কেটে দেন। পরে আবার চেষ্টা করলে তার নম্বরটি বন্ধ পাওয়া য়ায়।

গৌরনদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. হেলাল উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় থানার এসআই ইমাম হোসেন বাদী হয়ে শনিবার রাতে হারুন হাওলাদারসহ আটজনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা আরও তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। মামলার আসামি হিসেবে পার্কের পরিচ্ছন্নতাকর্মী আব্দুর রহমানকে গ্রেফতারের পর রোববার বিকেল তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

হেলাল উদ্দিন আরও বলেন, দুপুর ১২টার দিকে জানতে পারি ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন আসামি হারুন হাওলাদারের মৃত্যু হয়েছে। পরে শাহবাগ থানা পুলিশ হারুনের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

সাইফ আমীন/এসজে/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]