মহিলা দলের সভায় শ্রমিকলীগের হামলা, স্বর্ণের চেইন-ফোন ছিনতাই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৫:২৩ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২২

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা ও পৌর মহিলা দলের কর্মীসভায় হামলা চালিয়েছেন শ্রমিকলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এতে অন্তত ১০ নারী আহত হয়েছেন। এসময় পাঁচজনের স্মার্টফোন ও একজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেছেন মহিলা দলের নেত্রীরা।

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) সকালে মেহেন্দিগঞ্জ পৌরশহরের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের চুনারচর এলাকায় শুক্কুর বেপারী নামের স্থানীয় এক বিএনপি নেতার বাড়িতে এ কর্মীসভার আয়োজন করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হামলার ঘটনা ঘটে।

জেলা মহিলা দলের সভাপতি সাহেলা শারমিন মিমো অভিযোগ করে বলেন, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কর্মীসভা শুরু হয়। সভায় উপজেলা ও পৌর মহিলা দলের শতাধিক নেত্রী-কর্মী অংশ নেন। তিনি (সাহেলা শারমিন মিমো) প্রধান অতিথি ছিলেন। সভা শুরু হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে উপজেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল হাওলাদার, পৌর শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ও পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের শ্রমিকলীগের সভাপতি আমির চৌকিদারের নেতৃত্বে ৪০-৪৫ জন শ্রমিকলীগ এবং ছাত্রলীগের নেতাকর্মী লঠিসোটা, জিআই পাইপ ও রামদা নিয়ে হামলা চালান। হামলায় বরিশাল মহানগর মহিলা দলের নেত্রী তাছলিমা আক্তার পলি, উপজেলা মহিলা দলের আহ্বায়ক বিলকিস আক্তার, উপজেলা মহিলা দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ও মহেন্দিগঞ্জ পৌরসভা ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর রাশেদা বেগম বিউটি, মহিলা দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক আরজু বেগমসহ ১৫ থেকে ২০ জন আহত হন।

woman1

হামলার সময় সাহেলা শারমিন মিমোর স্মার্টফোন, মহানগর মহিলা দলের তাছলিমা আক্তার পলির স্বর্ণের চেইন ও স্মার্টফোন, যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদা বেগম বিউটির স্মার্টফোনসহ আরও দুই নেত্রীর স্মার্টফোন ছিনিয়ে নেওয়া হয়। এসময় কর্মীসভার চেয়ার-টেবিল ও শুক্কুর বেপারীর বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর করা হয়।

হামলায় আহত কাউন্সিলর রাশেদা বেগম বিউটি বলেন, তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় লাঠি দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তিনি গোপনে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন উপজেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল হাওলাদার। তিনি বলেন, ‘যে সময় ঘটনার কথা বলা হচ্ছে, ওই সময় সেখানে আমি ছিলাম না। ঘটনার বিষয় আমি কিছু জানি না। শুধু শুধু মিথ্যা অভিযোগ দেওয়া হচ্ছে।’

মেহেন্দিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনা তার জানা নেই। কেউ লিখিত বা মৌখিক অভিযোগও করেননি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাইফ আমীন/এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]