ববি ছাত্রীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় ইউপি মেম্বার গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৯:২৪ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২২
র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ইউপি মেম্বার সাইদুল আলম লিটন

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চতুর্থ বর্ষের এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানি ও তার স্বামীকে মারধরের ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি সাইদুল আলম লিটনকে (৪২) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

রোববার (১৬ জানুয়ারি) বিকেলে নগরীর রূপাতলী র‌্যাব-৮ এর সদরদফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি জানানো হয়। গ্রেফতার লিটন সদর উপজেলার চরকাউয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মো. জামিল হাসান বলেন, ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ওই শিক্ষার্থী তার স্বামীকে নিয়ে ১১ জানুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন আনন্দবাজার এলাকায় ঘুরতে যান। এ সময় মেম্বার সাইদুল আলম লিটন ও তার অনুসারী একই এলাকার বাসিন্দা জাহিদ হোসেন জয় এবং মাতুম মোল্লাসহ পাঁচ-ছয়জন যুবক ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করেন। এ সময় সঙ্গে থাকা ওই ছাত্রীর স্বামী এর প্রতিবাদ জানালে তাকে মারধর করেন। স্বামীকে রক্ষা করতে গিয়ে মারধরের শিকার হন শিক্ষার্থীও। তারা ওই ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন। ১২ জানুয়ারি সকালে বন্দর থানায় (সাহেবেরহাট) বাদী হয়ে মামলা করেন হামলার শিকার ওই ছাত্রীর স্বামী। ঘটনার পর থেকেই মামলার প্রধান আসামি সাইদুল আলম লিটন পলাতক ছিলেন।

জামিল হাসান আরও বলেন, পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা সাইদুল আলম লিটনকে গ্রেফতারে অভিযান শুরু করে। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে র‌্যাবের একটি দল জানতে পারেন সাইদুল আলম লিটন নগরীর সাগরদী ইসলামপাড়া এলাকায় আত্মগোপনে আছেন। এরপর আজ দুপুরে সেখানে অভিযান চালিয়ে লিটনকে গ্রেফতার করা হয়। লিটনের বিরুদ্ধে বন্দর থানায় (সাহেবেরহাট) আরও দুটি মামলা রয়েছে।

এদিকে আসামির স্বজনরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা কাটাকাটির জেরে সাইদুল আলম লিটন ও জাহিদ হোসেন জয়ের বাড়িতে ১১ জানুয়ারি রাতে শতাধিক শিক্ষার্থী হামলা চালান। এ সময় ঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনায় ১৩ জানুয়ারি সাইদুল আলম লিটনের স্ত্রী বাদী হয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ওই ছাত্রীর স্বামীকে আসামি করে মামলা করেন। এছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৩০-৪০ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলাটি আগামী ১০ দিনের মধ্যে বন্দর থানার (সাহেবেরহাট) ওসিকে এজাহার হিসেবে গ্রহণের নির্দেশ দেন আদালত।

বন্দর থানার (সাহেবেরহাট) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান জাগো নিউজকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) এক শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানি এবং তার স্বামীকে মারধরের মামলায় এ পর্যন্ত দুজন গ্রেফতার হয়েছে। বাকিদেরও গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

দুই আসামির বাড়িতে ভাঙচুরের অভিযোগে আদালতে মামলার বিষয় জানতে চাইলে ওসি বলেন, আদালত থেকে এ পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা বা কোনো ধরনের অভিযোগের কপি আমরা পাইনি। নির্দেশনা পেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাইফ আমীন/এসজে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]