রামেকের এমন রূপ আগে দেখেনি কেউ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজশাহী
প্রকাশিত: ১১:৪৪ এএম, ১৯ জানুয়ারি ২০২২

উত্তরাঞ্চলে চিকিৎসা সেবার শেষ আস্থা ও আশ্রয়স্থল রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল। এক সময় হাসপাতালটির ভেতর বাহিরসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে ময়লা, আবর্জনা ও দুর্গন্ধযুক্ত পরিবেশ বিরাজ করতো। তবে বর্তমানে ভিন্ন চিত্র রামেকজুড়ে। পরিচ্ছন্ন পরিবেশে ফিরেছে রামেক হাসপাতাল। এছাড়া আগের তুলনায় রামেকে চিকিৎসা সেবার মানও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের ভাষ্য।

রোববার (১৬ জানুয়ারি) রামেক হাসপাতাল সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে এমনই চিত্রের দেখা মেলে। রামেক হাসপাতালে প্রবেশের জন্য একটি দ্বার উন্মুক্ত করা হয়েছে, বের হওয়ার জন্য আরেকটি। একইসঙ্গে আলাদাভাবে তৈরি করা হয়েছে হেঁটে হাসপাতাল থেকে বের হওয়ার ব্যবস্থা। আবার প্রবেশদ্বারের পাশে যুগ যুগ ধরে জঙ্গল ও ময়লা-আবর্জনার স্তূপ হয়ে পড়ে থাকা বিস্তৃর্ণ এলাকা পরিষ্কার করে লাগানো হয়েছে ফুলের গাছ।

রামেকে প্রবেশের শুরুতেই করা হয়েছে একটি মোটরসাইকেল গ্যারেজ। অন্যদিকে পূর্বপাশে ছাউনি দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে ডাক্তার ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাইক ও মাইক্রোবাস রাখার জায়গা।

jagonews24

দেখা গেছে বাঁশি ও লাঠি নিয়ে রামেকের ভেতরে বিভিন্ন যানবাহন নিরসনের দৃশ্যও। এতে রামেকে জটলা ধরে অটোরিকশা কিংবা সিএনজি দাঁড়িয়ে থাকছে না। ফলে নির্বিঘ্নে একের পর এক অ্যাম্বুলেন্সে রোগী আসা যাওয়া করছে মুহূর্তের মধ্যেই।

আবার রামেকের ভেতর ও ঠিক বাইরের দিকেই দাঁড়িয়ে থাকতো মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স সিন্ডিকেট। একেতো স্বজন হারানোর বেদনা, তারপর আবার স্বজনের মরদেহ পরিবহনের জন্য চেয়ে বসতো ৫ থেকে ১০ গুণ বেশি ভাড়া। বর্তমানে সেই চিত্রও পাল্টেছে।

এক্ষেত্রে রামেক কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, বিভিন্ন ওয়ার্ডে পর্যাপ্ত ডাস্টবিনের ব্যবস্থা আমরাই করতে পারিনি। তাই অনেক সময় বাধ্য হয়ে রোগীর স্বজনরা ময়লা-আবর্জনা ফেলার জায়গা না পেয়ে বাইরে ফেলেন। তবে আগামীতে পরিবেশ আরও সুন্দর পরিচ্ছন্ন করার জন্য ডাস্টবিনসহ বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বিষয়ে প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন রামেক পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী।

jagonews24

নগরীর নওদাপাড়ার বাসিন্দা সোহেল। রামেকে ভর্তি রয়েছে বাবা। হাসপাতালের পরিবেশ ও স্বাস্থ্যসেবার মান সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগের চাইতে পরিবেশটা অনেক সুন্দর হয়েছে। আবার ডাক্তাররাও সময় দিয়ে রোগী দেখছেন। চুরি-চামারি আটকাতে আইডি কার্ড ছাড়া ঢুকতে ও বের হতে দেয় না। এটা অনেক ভালো হয়েছে।

চাপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার বাসিন্দা মো. কুতুবউদ্দিন। ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন তার মা। তিনি বলেন, এটা সত্যিই যে সেবার মান আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। রামেকে টেস্টও হচ্ছে অনেক। কিন্তু পরিবেশটা আরও নিট ও ক্লিন করতে হবে।

এদিকে পার্কিং স্লটে দায়িত্বে ছিলেন আশিক নামের এক আনসার সদস্য। রামেকে কাজ করছেন ৬ মাস যাবত।

jagonews24

তিনি বলেন, ছ’মাসের মধ্যেই রামেকে আমি অনেক পরিবর্তন দেখেছি। বাইরে নোংরা পরিবেশের পরিবর্তন হয়ে ফুলের বাগান হয়েছে, হয়েছে স্টাফদের জন্য পার্কিং স্লট। আবার ইমারজেন্সির গেটের দিকে পানি জমে থাকত, সেটিও ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নের কারণে আর জমে না। সবমিলিয়ে রামেকের পরিবেশ অনেক উন্নত হয়েছে আগের তুলনায়।

রামেক সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে এ হাসপাতালে রয়েছে মোট ১২০০ শয্যা। বর্তমানে প্রতিদিন প্রায় ২ থেকে আড়াই হাজার রোগীর আনাগোনা রামেকে। তবে এ পরিমাণটি গরমের সময় বেড়ে দাঁড়ায় প্রায় তিন থেকে চার হাজারে। ওয়ার্ড রয়েছে ৫৭টি। হাসপাতালটিতে চিকিৎসক পদ রয়েছে ২৩৩টি যার মধ্যে ৩০টি পদ শূন্য। দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর মোট ৯১১ পদের মধ্যে ১৪৬টি শূন্য আছে। আগের ৫৫০ শয্যার জনবল দিয়েই ১২০০ শয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালটির কার্যক্রম চলছে। এতে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে রামেক হাসপাতাল পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী। তিনি ২০২০ সালের ৮ নভেম্বর রামেকের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। যোগদানের আগে ঢাকা সিএমএইচ হাসপাতালের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। রামেকে আসার পর প্রথমেই নজর দেন নোংরা পরিবেশ দূর করার দিকে।

জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসেই দেখি রামেকের বিভিন্ন জায়গায় অনেক নোংরা ও দুর্গন্ধ। যেটা আমরা অল্প চেষ্টা করলেই দূর করতে পারি। ড্রেনগুলো খারাপ ছিল, ম্যানপাওয়ারও ছিল কম। প্রথমদিকে চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছিলাম। তারপর পারসোনালি এখানকার ইমপ্লোয়ারদের মটিভেট করে চ্যালেঞ্জ হিসেবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন পরিবেশে নিয়ে আসি।

jagonews24

তিনি জানান, এখানে কোনো বাগান বা মালির খাত নেই। তারপরও ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, রাস্তার ইন-এক্সিট, যানজট ও সিন্ডিকেট দূরীকরণসহ ডানে-বামে ম্যানেজ করে বাগান করেছি। যাতে মানুষ রামেকে ঢুকতেই তার মনটা পরিবর্তন হয়ে য়ায়। গেটের ভেতরে বাইরে সেবা ও সচেতনতার জন্য সাইনবোর্ড ব্যবহার করা হচ্ছে। রোগীর তুলনায় জনবল কম। সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও ডিজি হেলথের মাধ্যমে ১০৬ জন লোক আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে নেওয়ার আহ্বান করেছি।

তিনি বলেন, আরেকটি বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে শয্যা সমস্যা। হাসপাতালে ১০ তলার ফাউন্ডেশন হলেও ৪ তলা পর্যন্ত হয়েছে। সেক্ষেত্রে যদি রোগীর শয্যা বাড়ানো যেত তাহলে রোগীর সেবার মান আরও বাড়ানো সম্ভব ছিল। কারণ সবাই ফোন করে একটা বেড চাই।

পরিচালক বলেন, বর্তমানে রামেকে প্রত্যেকটি চিকিৎসক থেকে শুরু করে নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারী, পরিচ্ছন্নকর্মী ও আনসারদের মোডিভেট করা হচ্ছে। আনসারদের প্রাতিষ্ঠানিক তেমন ট্রেনিং নেই। তাদের মাঝে মধ্যেই ব্রিফ করা হয় যেনো তারা তাদের দায়িত্ব সুচারুরূপে পালন করতে পারে। এসবের ফলও বেশ মিলেছে। চিকিৎসক-নার্সেরা সেবা দিচ্ছেন, পরিচ্ছন্নকর্মীরা তাদের কাজ করছেন আবার আনসাররা মানুষকে মাঝে মাঝে সহায়তায় দৌড়ে যাচ্ছেন। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরার কারণে স্টাফরাও আসছেন ও যাচ্ছেন সময়মতো। এভাবেই ধীরে ধীরে পরিবর্তন আনা সম্ভব বলে জানান পরিচালক।

চিকিৎসা সেবার বিষয়ে তিনি বলেন, এখানে আগে ৫ শতাংশ টেস্টও হতো না। সেখানে আমরা প্যাথলজি ও ইনডোর প্যাথলজি করেছি। এখন ৮০ শতাংশ টেস্ট রামেক হাসপাতালেই হচ্ছে। আশা করছি একমাসের মধ্যেই এখানে শতভাগ প্যাথলজিক্যাল ও রেডিওলজিক্যাল টেস্ট সম্পন্ন হবে। এক্ষেত্রে পড়ে থাকা রামেকের সমস্ত যত্রাংশ ঠিকঠাক ও মেরামত করা হয়েছে।

jagonews24

খাবারের মানের বিষয়ে পরিচালক ইয়াজদানী বলেন, আসলে মনিটরিংটা হলো সবচেয়ে বড় বিষয়। আগে ঠিকভাবে খাবার মনিটরিং হতো না। কিন্তু বর্তমানে আমি এটি কড়া মনিটরিং করছি। এজন্য একটি কমিটি করে দিয়েছি তারা ভালো খাবার বুঝে নিবে। পাশাপাশি রোগীরা নিচে লাইন ধরে খাবার নেন। এসমস্যা দূর করার জন্য উন্নত ট্রলির ব্যবস্থার চেষ্টা করছি। যাতে প্রতিটি ওয়ার্ডে খাবার ট্রলিতে করে পৌঁছে দেওয়া যায়।

করোনা ইউনিটের বিষয়ে তিনি বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কোনো রকম সামাল দিতে পেরেছি। কিন্তু তৃতীয় ঢেউ সামাল দেওয়ার জন্য বেশ প্রস্তুতি রয়েছে। আমাদের সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্রসেসিং সিস্টেমের আওতায় অক্সিজেন সাপ্লাইয়ের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও পর্যাপ্ত সিলিন্ডারে অক্সিজেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে যাতে অক্সিজেনের অভাবে রোগী না মারা যায়।

সবমিলিয়ে রামেক পরিচালক শামীম ইয়াজদানীর আশা, রোগীদের হয়রানি দূর করা, দ্রুত সেবাদান। তাদের সম্মান দেওয়া ও সেবার মান উন্নয়ন করা। বর্তমানে চিকিৎসকেরাও অনেকটায় উদ্যোমী হয়েছেন, সেবা অনেক ভালো দিচ্ছেন। কিন্তু করোনার কারণে অনেকটায় ভাটা পড়ছে। মানুষ যখন রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালের নাম শুনবে তখন যেনো সম্মানের সঙ্গে নামটা উচ্চারণ করে। আমরা চাই আমরা ‘ওয়ান অব দ্যা বেস্ট’ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হবো বাংলাদেশের মধ্যে।

ফয়সাল আহমেদ/এফএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]