কেন্দুয়ায় যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মাদরাসা শিক্ষক কারাগারে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নেত্রকোনা
প্রকাশিত: ০৫:৪৩ এএম, ২৯ মার্চ ২০২২

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় মাদরাসা ছাত্রীকে ‘যৌন নিপীড়নের’ অভিযোগে তাজুল ইসলাম (৩৫) নামে এক শিক্ষককে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

তাজুল ইসলামের কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ছবিলা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি কেন্দুয়ার বাড়লা গ্রামের মসজিদের ইমাম। মসজিদে গ্রামের শিশুদের তিনি আরবি পড়ানোর পাশাপাশি ওই গ্রামেরই একটি কওমি মাদরাসায় শিক্ষকতা করেন।

সোমবার (২৮ মার্চ) সন্ধ্যায় তাকে নেত্রকোনা বিচারিক আদালতে পাঠানো হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে তিনি জামিন আবেদন করেন। কিন্তু আদালত তা নামঞ্জুর করেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তাজুল রোববার (২৭ মার্চ) মক্তবে শিক্ষার্থীদের পড়াচ্ছিলেন। সকাল সোয়া ৮টার দিকে অন্য শিক্ষার্থীদের ছুটি দিয়ে এক শিক্ষার্থীকে (১০) থাকতে বলেন। পরে তাজুল ওই শিক্ষার্থীকে তার কক্ষে নিয়ে গিয়ে যৌন নিপীড়ন করেন। শিশুটি বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি তার অভিভাবককে জানালে এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এসময় গ্রামের লোকজন তাকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন।

পরদিন সোমবার শিশুটির বাবা বাদী হয়ে তাজুলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠায় কেন্দুয়া থানার পুলিশ।

কেন্দুয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহনেওয়াজ বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শিশুটিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আর অভিযুক্ত তাজুলকে সোমবার বিকেলে নেত্রকোনা বিচারিক আদালতে পাঠালে বিচারক তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

এইচ এম কামাল/এমএএইচ/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]