রামেকের করোনা ইউনিট সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে স্থানান্তর

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৯:৩৫ পিএম, ১৪ মে ২০২২

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিট সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে (আইডিএইচ) স্থানান্তর করা হয়েছে।

শনিবার (১৪ মে) রাতে বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী।

তিনি বলেন, এপ্রিল থেকে করোনার নতুন কোনো রোগী ভর্তি হয়নি। ঈদের আগে থেকেই একেবারে ফাঁকা রয়েছে এ ইউনিট। ফলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে এটি স্থানান্তর করে সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে (আইডিএইচ) নেওয়া হয়েছে। ইনফেকশাস ডিজিজ হাসপাতালটিও রামকে হাসপাতালেরই অংশ। সে ক্ষেত্রে রামেক হাসপাতাল থেকে করোনা ইউনিট একেবারে বন্ধ হচ্ছে তা বলা ঠিক নয়। যে কেউ নতুনভাবে করোনা সংক্রমিত হলে সেখানে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

রামেক হাসপাতাল সূত্র জানায়, করোনাার দ্বিতীয় ঢেউ চলাকালে রামেক করোনা ইউনিটে ডেডিকেটেড শয্যার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ৪৫৪। ২০২১ সালের মাঝামাঝিতে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ও সংক্রমণ ছিল। প্রথম দিকে হাসপাতালের ১৩নং ওয়ার্ডে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে সংক্রমণ ও রোগী বেড়ে যাওয়ায় রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিট খোলা হয়। ব্যবহার করা হয় ৩০নং ওয়ার্ডও। আইসিইউ ইউনিটে শয্যা সংখ্যা বাড়িয়ে ২০ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে করোনার টিকা ও বুস্টার ডোজ শুরু হলে রাজশাহীসহ সারাদেশে করোনা রোগীর সংখ্যা কমতে শুরু করে। বর্তমানে শুধুমাত্র ৩০নং ওয়ার্ডে ২৪টি শয্যায় করোনার চিকিৎসা দেওয়া হতো। তবে ঈদের দুদিন আগে থেকে করোনা ওয়ার্ডে কোনো রোগী ভর্তি না হওয়ায় তা স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

রামকে হাসপাতাল পরিচালক বলেন, রামেকে রোগীর তুলনায় শয্যা সংখ্যা কম। অপরদিকে, করোনা ইউনিটে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে রোগী নেই। তাই ওয়ার্ডটি ব্যবহার হলে অনেক রোগী শয্যা পাবেন।

ফয়সাল আহমেদ/এএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]