বখাটেদের ছবি দেখে ধর্ষককে চিহ্নিত করলেন বাকপ্রতিবন্ধী তরুণী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ময়মনসিংহ
প্রকাশিত: ০৯:০৬ এএম, ২৯ মে ২০২২

ময়মনসিংহের পাগলায় বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনায় মো. জহিরুল ইসলাম (২৮) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। শনিবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ১১টায় পাগলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রাশেদুজ্জামান জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অভিযুক্ত জহিরুল ইসলাম পাগলা থানার পাইথল ইউনিয়নের মো. নাছির মিয়ার ছেলে।

ওসি বলেন, শুক্রবার (২৭ মে) রাতে ওই বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীর মা বাদী হয়ে জহিরুল ইসলামকে আসামি করে থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। পরদিন সকালে ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে বিকেলে তরুণীর জবানবন্দি রেকর্ড করার জন্য আদালতে পাঠানো হয়।

ভিক্টিমের চাচাত ভাই বলেন, ধর্ষণের শিকার তরুণী বাকপ্রতিবন্ধী। জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে ওই বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীকে নিজ বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণ করেন বখাটে জহিরুল ইসলাম। তবে মেয়েটি কথা বলতে না পারায় তার পরিবারকে বিষয়টি জানাতে পারেননি। এভাবেই ঘটনাটি চাপা পড়ে যায়।

সম্প্রতি ওই তরুণী জন্ডিসে আক্রান্ত হন। কবিরাজি ওষুধ খাওয়ানোর পর তার জন্ডিস ভালো হয়। তবে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২০ মে ডাক্তার দেখাতে যান। ডাক্তার আল্ট্রাসনোগ্রাফি করানোর পরামর্শ দেন। পরে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করানোর পর তার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি জানতে পারে পরিবার।

তিনি বলেন, তবে এ ঘটনার জন্য দায়ী কে তা জানা ছিল না। তিনি কারোর নামও বলতে পারেন না। এমতাবস্থায় এলাকার কিছু বখাটে ছেলের ছবি দেখালে তিনি জহিরুল ইসলামকে ধর্ষক হিসেবে চিহ্নিত করেন। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে জহিরুল এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় থানায় মামলা করি।

ওসি মো. রাশেদুজ্জামান আরও বলেন, এই ঘটনা নিয়ে এলাকায় অনেক দেন-দরবার হয়েছে। যে কারণে অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে। তবে তাকে গ্রেফতারে একাধিক টিম কাজ করছে।

মঞ্জুরুল ইসলাম/এফএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]