সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মারা ৩৭ মণ মাছ জব্দ, আটক ৭

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক খুলনা
প্রকাশিত: ০৪:০৮ পিএম, ৩০ জুন ২০২২

সুন্দরবনের খালে বিষ দিয়ে শিকার করা ৩৭ মণ মাছ জব্দ করে সাতজনকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) ভোরে কয়রা উপজেলার মাদারবাড়িয়া বটতলা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- খুলনার কয়রা উপজেলার ৪নং কয়রা গ্রামের মো. মোস্তফা সানা (৪০), মো. মিজানুর রহমান (২৮), মো. আছাদুল ইসলাম (৩৭), আসাদুল ইসলাম (৩৫), মঠবাড়িয়া গ্রামের আনারুল (৪০), মহারাজপুর গ্রামের মো. সাইফুল্লাহ গাজী (৩০) ও মিলন গাজী (৩৭)। এসময় ৪নং কয়রা গ্রামের ইব্রাহিম সানার ছেলে বাসার সানা (৫৫) পালিয়ে যান।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার মাদারবাড়িয়া বটতলা এলাকা থেকে বিষ দিয়ে মাছ শিকারিদের আটক করা হয়। শিকারিরা বিষ দিয়ে ধরা মাছ বিক্রির উদ্দেশ্যে নিয়ে আসার খবর পেয়ে চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ উপস্থিত থেকে চারটি নসিমনসহ আটজনকে আটক করেন। তবে এসময় একজন পালিয়ে যান। পরে জব্দ করা মাছসহ সাতজনকে উপজেলা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

jagonews24

হস্তান্তরকালে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাস, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আমিনুর ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, বৃহস্পতিবার ভোরে কয়েকটি নছিমনে করে মাছ নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা তাদের আটক করে। খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে চিংড়ি বোঝাই চারটি নছিমন জব্দ করা হয়। আটক ব্যক্তিদের স্বীকারোক্তিতে জানা গেছে, মাছগুলো সুন্দরবনের মাছ ব্যবসায়ী লুৎফর রহমানের। তার নির্দেশে এ মাছ আড়তে বিক্রির জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

চেয়ারম্যান আরও বলেন, আগামী ১ জুন থেকে জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সুন্দরবনে প্রবেশে তিনমাসের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বনবিভাগ। এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থানীয় দুষ্কৃতিকারীরা সুন্দরবনের খালে বিষ দিয়ে মাছ শিকার অব্যাহত রেখেছে।

আলমগীর হান্নান/এমআরআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]