হৈ-হুল্লোড়ে বিরক্ত হয়ে মাথায় তুলে আছাড়, মারা গেলো শিশুটি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ময়মনসিংহ
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

ময়মনসিংহের নান্দাইলে হৈ-হুল্লোড়ের আওয়াজে বিরক্ত হয়ে আছাড় মেরে এক শিশুকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শাওন মিয়া (১৮) নামের এক তরুণের বিরুদ্ধে। বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ওই শিশুর মৃত্যু হয়।

মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) কিশোরগঞ্জের ২৫০ শয্যা হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ।

নিহত শিশুর নাম ইমরান হোসেন (৭)। সে উপজেলার রাজগাতি ইউনিয়নের বিলভাদেরা গ্রামের সবুজ মিয়ার ছেলে। ইমরান স্থানীয় দাসপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল।

নান্দাইল থানার পরিদর্শক মিজানুর রহমান আকন্দ জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও পরিবার সূত্র জানায়, গত ১ সেপ্টেম্বর দুপুরে বৃষ্টি হচ্ছিল। এলাকার বেশ কয়েকজন শিশু প্রতিবেশী শফিকুল ইসলামের বাড়ির সামনে খেলাধুলা করছিল। এ সময় শিশুরা খেলাধুলা ও হৈ-হুল্লোড়ে মেতেছিল। এই আওয়াজে বিরক্ত হয়ে শফিকুলের ছেলে মো. শাওন মিয়া শিশুদের ধাওয়া দেন। অন্য শিশুরা দৌড়ে পালিয়ে যেতে পারলেও ইমরানকে ধরে মাথার ওপরে তুলে আছাড় মারেন শাওন।

এতে শিশুটি জ্ঞান হারালে ওই অবস্থাই ফের লাঠি দিয়ে উপর্যুপরি আঘাত করে চলে যান তিনি। এতে শিশুটি গুরুতর আহত হয়। পরে স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা করালেও ইমরান পুরোপুরি সুস্থ হয়নি।

এ ঘটনার সাতদিন পর শিশুটির শরীর, নাক ও মুখ ফুলে যায়। বুধবার রাতে তাকে স্থানীয় স্বাস্থ কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। পরে হাসপাতাল থেকে বের করতেই মারা যায় শিশুটি।

রাজগাতী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, সাতদিন আগে শিশুটি খেলা করছিল। এ সময় স্থানীয় এক তরুণ শিশুটিকে মাথার ওপর তুলে মাটিতে আছাড় মারে। এতেই শিশুটি মারা গেছে।

পুলিশ কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, বুধবার গভীর রাতে হাসপাতাল থেকে শিশুটির মরদেহ নান্দাইল মডেল থানায় নিয়ে আসেন স্বজনরা। সুরতহাল শেষে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জের ২৫০ শয্যা হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় শিশুর পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

মঞ্জুরুল ইসলাম/এসআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।