মালয়েশিয়ায় অপহরণ, মুক্তিপণের টাকাসহ বরগুনায় যুবক গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৯:২৩ এএম, ০৫ অক্টোবর ২০২২

মালয়েশিয়ায় সোহেল মিয়া (৩৯) নামের বাংলাদেশি এক যুবককে অপহরণের পর ৫ লাখ টাকা দাবি করা হয়। কিন্তু মুক্তিপণ দিলেও তার খোঁজ মিলছে না। এ ঘটনায় বরগুনা থেকে মুক্তিপণের টাকাসহ নাসির উদ্দিন (৩৮) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছেন র‌্যাবের সদস্যরা।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর রূপাতলী র‌্যাব-৮ এর সদর দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। নাসির বরগুনার বামনা উপজেলার খোলপটুয়া এলাকার মৃত আলতাফ হোসেনের ছেলে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সোহেল টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার দক্ষিণ ধলাপাড়া গ্রামের মৃত আহমেদ মিয়ার ছেলে। পরিবারের সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে ২০০৭ সালে তিনি মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমান তিনি। মালয়েশিয়ায় একটি কারখানায় কাজ করতেন। ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে দেশটির কুয়ালালামপুরের তামিলজায়া এলাকায় বাসার কাছ থেকে সোহেল মিয়াকে অপহরণ করা হয়।

ওইদিন দিনগত রাত ২টার দিকে বাংলাদেশে থাকা বোনজামাই বেল্লাল হোসেনকে মালয়েশিয়ার একটি নম্বর থেকে ফোন করে সোহেল জানান, অপহরণকারীরা তাকে তুলে নিয়ে গেছে। ৫ লাখ টাকা না দিলে তাকে মেরে ফেলবে। পরে এক অপহরণকারী ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড বরিশাল শাখার ‘খোলপটুয়া পোল্ট্রি ফিড’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্ট নম্বর দেয় এবং সেখানে মুক্তিপণ পাঠাতে বলে। ওই অ্যাকাউন্টের মালিক মো. নাসির উদ্দিন। তবে টাকা পাঠানো হলেও সোহেলের মুক্তি মেলেনি।

র‌্যাব-৮ এর উপ-পরিচালক মেজর মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জাগো নিউজকে বলেন, ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরের তামিলজায়া এলাকা থেকে সোহেল মিয়াকে অপহরণকারীরা তুলে নিয়ে যায়। এরপর মালয়েশিয়ার একটি নম্বর থেকে ফোন করে খোলপটুয়া পোল্ট্রি ফিড নামের একটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্টে সোহেলের বোনজামাই বেল্লাল হোসেনকে টাকা পাঠাতে বলা হয়। ২৭ সেপ্টেম্বর অপহরণকারীদের দেওয়া ব্যাংকের ওই অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দেন বেল্লাল হোসেন। এরপর ওইদিনই অপহরণকারীদের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে পাঁচ লাখ টাকার মানি রিসিট পাঠিয়ে দেওয়া হয়। অপর প্রান্ত থেকে ‘ওকে’ লিখে জবাবও দেওয়া হয়। কিন্তু, এরপরও সোহেলের কোনো খোঁজ পায়নি পরিবার। সেই হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরটিও বন্ধ রয়েছে।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরও বলেন, সোহেলের সন্ধান না পেয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর বেল্লাল হোসেন টাঙ্গাইলের ঘাটাইল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন। অন্যদিকে এ ঘটনায় সোহেলের আত্মীয় ও বেল্লাল হোসেনের ভাতিজা মালয়েশিয়া প্রবাসী হাশেম আহমেদ ২ অক্টোবর জহুর বারু সেলাতান থানায় (বালাই) অভিযোগ দেন। এ ছাড়া মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশনে সোহেলকে উদ্ধারে জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানানো হয়।

মেজর মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বেল্লাল হোসেনের দেওয়া লিখিত অভিযোগটি ৩ অক্টোবর রাতে এজহারভুক্ত হয়। মুক্তিপণের টাকা জমা দেওয়া ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বরটি বরিশালে হওয়ায় ঘাটাইল থানা পুলিশ বিষয়টি আমাদের কাছে জানায়। মঙ্গলবার সকালে বরগুনার বামনা উপজেলার খোলপটুয়া এলাকায় র‌্যাব-৮ এর একটি দল অভিযান চালায়। পরে খোলপটুয়া বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় ওই অ্যাকাউন্টের মালিক নাসির উদ্দিনকে। তার কাছ থেকে মুক্তিপণের পাঁচ লাখ টাকাও উদ্ধার করা হয়। রাত ১১টার দিকে ঘাটাইল থানা পুলিশের কাছে নাসিরকে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সাইফ আমীন/এসজে/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।