ইয়াবা দিয়ে পুলিশের ছেলেকে ফাঁসাতে গিয়ে ফাঁসলেন ৩ কনস্টেবল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৮:২৩ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০২২
ফাইল ছবি

সিলেটে এক কলেজছাত্রকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টার দায়ে সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) তিন পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

বরখাস্ত হওয়া তিন পুলিশ সদস্য হলেন এসএমপির কনস্টেবল ঝুনু হোসেন জয়, ইমরান মিয়া ও মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) সুদীপ দাস জাগো নিউজকে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বরখাস্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সিলেট শহরতলীর মেজরটিলা এলাকার বাসিন্দা ও পুলিশ সদর দপ্তরের পিআইও শাখায় কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক আবু সায়েদের ছেলে সাইফুর রহমান আসাদ (১৮)। তিনি গত ১৩ অক্টোবর অনলাইনে নিজের পুরোনো একটি মোবাইল ফোন ১৬ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। সেই ফোন বিক্রির টাকা নিতে ওইদিন সন্ধ্যার পর এক বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে নগরের বন্দরবাজার এলাকায় যান।

মোবাইল বিক্রির টাকা নিয়ে তারা দুজনে হযরত শাহজালালের (রহ.) মাজার এলাকায় আসেন। সেখানে আসার কিছুক্ষণ পর তিন পুলিশ সদস্য আসাদ ও তার বন্ধুকে আটক করে তাদের ব্যাগ তল্লাশি করে ইয়াবা পাওয়ার দাবি করেন। তখন সাইফুর রহমান আসাদ এর প্রতিবাদ করেন। তিনি পুলিশে কর্মরত তার বাবার পরিচয়ও দেন। বিষয়টি তার বাবাকেও জানান সামাদ।

খবর পেয়ে শাহপরাণ থানায় কর্মরত উপ-পরিদর্শন (এসআই) জামাল ভুঁইয়া ঘটনাস্থলে যান। তিনি আসাদ ও তার বন্ধুকে নগরের কোতোয়ালি থানায় নিয়ে যান। সেখানে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

তবে ওই কলেজছাত্রকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা ও টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনার অভিযোগ ওঠে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছেও পৌঁছায়। ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব পান এসএমপি পুলিশ লাইনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (ফোর্স) সালেহ আহমদ।

তিনি গত ২৪ নভেম্বর প্রতিবেদন জমা দেন। তদন্তে ঘটনার সত্যতা বেরিয়ে আসে। এই প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাদের তিনজনকে বরখাস্ত করা হয়।

ছামির মাহমুদ/এসআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।