শিলচর-সিলেট উৎসব

জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনে কুশিয়ারা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৭:৫৮ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছরপূর্তি উপলক্ষে আসামের শিলচরে তিন দিনব্যাপী শিলচর-সিলেট উৎসব চলছে।

উৎসবের দ্বিতীয় দিনে শনিবার (৩ ডিসেম্বর) দুই দেশের ব্যবসায়ী নেতারা প্যানেল আলোচনায় অংশ নিয়ে বাণিজ্য সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে জকিগঞ্জ স্থল শুল্ক স্টেশন এলাকায় কুশিয়ারা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ ও করিমগঞ্জ-জকিগঞ্জ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের আহ্বান জানিয়েছেন। তারা বলেন, এই স্টেশনকে পুরোপুরি কাজে লাগানো গেলে দুই দেশে পণ্যপরিবহন আরও সহজ হবে।

ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ও আসাম সরকারের সহযোগিতায় শিলচরে আয়োজিত উৎসবে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে কয়েকজন মন্ত্রী, দ্য সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, সিলেট উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রতিনিধি এবং সাংবাদিকরা ভারতে গেছেন।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন সকালে ট্রেড অ্যান্ড কমার্স সেশনে সভাপতিত্ব করেন মিজোরামের গভর্নর কম্ভাপতি হরি বাবু। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আসাম সরকারের পরিবেশ ও বনমন্ত্রী চন্দ্র মোহন পাটোয়ারী এবং ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

জকিগঞ্জ শুল্ক স্টেশনে কুশিয়ারা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের আহ্বান

ট্রেড অ্যান্ড কমার্স সেশনের প্যানেল ডিসকাশন পর্বে সভাপতিত্ব করেন ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য অরুণ কুমার সাহনি এবং কো-চেয়ারম্যান ছিলেন বাংলাদেশের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহমান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তিতে ভারতীয় জনগণকে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানান। তিনি ভারতের সঙ্গে সিলেটের ব্যবসা-বাণিজ্য, আমদানি-রপ্তানি ও সাংস্কৃতিক সম্পর্ক বৃদ্ধিতে শিলচর-সিলেট উৎসব আয়োজনের জন্য ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন ও আসাম সরকারকে অভিনন্দন জানান।

ড. মোমেন বলেন, দুই দেশের উন্নয়নের স্বার্থেই ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে হবে।

ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নয়নে তার পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন মন্ত্রী।

প্যানেল ডিসকাশন পর্বে বক্তব্য দেন সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক তাহমিন আহমদ। তিনি বলেন, শিলচর ও সিলেটের মধ্যে আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে। আমরা সীমান্তের দুই পাড়ে বসবাস করলেও পরিবেশ, জীবনযাত্রা ও সংস্কৃতির দিক থেকে অভিন্ন।

তিনি আসাম ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য সম্পর্কের উন্নয়নে করিমগঞ্জ-জকিগঞ্জ বর্ডারে কুশিয়ারা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ, মেঘালয়ের কয়লা আসামের অভ্যন্তর দিয়ে পরিবহনের অনুমতি দেওয়া, বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন পণ্য আমদানিতে বিরাজমান বাধাগুলো দূরীকরণ, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ বিভিন্ন প্রস্তাবনা তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে সিলেট চেম্বারের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান পরিচালক আবু তাহের মো. শোয়েব, সিলেট উইমেন চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি স্বর্ণলতা রায় ও ভারতীয় ব্যবসায়ী সংগঠনগুলোর নেতারা বক্তব্য দেন।

ছামির মাহমুদ/এমআরআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।