রংপুরে বেড়েছে দেশি মুরগি-ময়দার দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রংপুর
প্রকাশিত: ০২:২৫ পিএম, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২

রংপুরের বাজারে সপ্তাহের ব্যবধানে কমেছে বেশ কিছু সবজির দাম। একই সঙ্গে দাম কমেছে ডিম, আদা, আলু ও খোলা আটার। তবে দাম বেড়েছে ময়দা এবং দেশি মুরগির। এছাড়া চাল, ডাল, বোতলজাত সয়াবিন ও মাছ-মাংসের দাম প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) রংপুর নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে ব্রয়লার মুরগির কেজি গত সপ্তাহের মতো ১৪০-১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে হলেও পাকিস্তানি মুরগি ৫-১০ টাকা বেড়ে ২৫৫-২৬০ টাকা, দেশি মুরগি ৪২০-৪৩০ টাকা থেকে বেড়ে ৪৪০-৪৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মুলাটোল আমতলা বাজারের মুরগি বিক্রেতা আমীর হোসেন বলেন, সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম অপরিবর্তিত থাকলেও পাকিস্তানি ও দেশি মুরগির দাম বেড়েছে। আমদানি কমে যাওয়ায় বাজারে এর প্রভাব পড়েছে।

রংপুরে বেড়েছে দেশি মুরগি-ময়দার দাম

বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন ১৯০ টাকা, দুই লিটার ৩৮০ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেল গত সপ্তাহের মতোই ১৮০-২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

চালের বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, খুচরা বাজারে স্বর্ণা চাল গত সপ্তাহের মতোই ৫০-৫২ টাকা, ৫৪-৫৫ টাকা, পাইজাম ৫৪-৫৫ টাকা, বিআর২৮ ৬৩-৬৫ টাকা, মিনিকেট ৭৫-৭৮ টাকা ও নাজিরশাইল ৮৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

রংপুরে বেড়েছে দেশি মুরগি-ময়দার দাম

বাজার ঘুরে দেখা যায়, গত সপ্তাহের তুলনায় কিছু সবজির দাম কমেছে। প্রতিকেজি টমেটো ১০০-১২০ টাকা থেকে কমে ৭০-৮০ টাকা, গাজর গত সপ্তাহের মতোই ৬০-৭০ টাকা, করলা ৫০-৬০ টাকা, শসা ৫০-৬০ টাকা, চিকন বেগুন ১৫-২০ টাকা, গোল বেগুন ৫-১০ টাকা কমে ৩০-৩৫ টাকা, পেঁপে আগের মতোই ১৫-২০ টাকা, লেবু প্রতিহালি ৮-১০ টাকা, কাঁচামরিচ ৩০-৩৫ টাকা, শুকনা মরিচ ৪৫০-৫০০ টাকা, লাউ প্রতিপিস ২০-২৫ টাকা, ধনেপাতা ৩০-৪০ টাকা থেকে বেড়ে ৫০-৬০ টাকা, কাঁচকলা হালি ২৫-৩০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০-৬০ টাকা, বরবটি ৩৫-৪০ টাকা, দুধকুষি ৪০-৪৫ টাকা, পটল ৩৫-৪০ টাকা, প্রতিকেজি মিষ্টিকুমড়া ৩৫-৪০ টাকা, ঝিঙে ৪০-৫০ টাকা, কাঁকরোল ৪০-৫০ টাকা, শিমের দাম কমে ৩৫-৪০ টাকা, মুলার দাম কমে ১০-১৫ টাকা, বাঁধাকপি ২০-২৫ টাকা এবং ফুলকপির দাম কমে ১৫-২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া গত সপ্তাহের তুলনায় আদার দাম কমে ১১০-১২০ টাকা ও রসুন আগের মতোই ৭০-৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে সবধরনের শাকের আঁটি পাওয়া যাচ্ছে ১০-১৫ টাকায়।

খুচরা বাজারে কার্ডিনাল আলু গত সপ্তাহের চেয়ে ২/৩ টাকা কমে ২০-২২ টাকা, শিল আলু ৪৫-৪৮ টাকা, ঝাউ আলু ৫০-৫৫ টাকা এবং সাদা আলুর দাম কমে ৩৫ টাকা কেজি দরে পাওয়া যাচ্ছে। তবে বাজারে আসা গ্রানুলা আলু বিক্রি হচ্ছে গত সপ্তাহের চেয়ে ৫ টাকা কমে ৩০-৩৫ টাকা কেজি দরে। এ সপ্তাহে দেশি পেঁয়াজ ৪০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সিটি বাজারের সবজি বিক্রেতা মহসিন মিয়া বলেন, শীতকালীন সবজি অনেকটাই নাগালের মধ্যে চলে আসছে। মুলা, বেগুন ও কপির দাম বলা চলে সহনীয় পর্যায়ে।

রংপুরে বেড়েছে দেশি মুরগি-ময়দার দাম

বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে খোলা চিনি গত সপ্তাহের মতোই ১১০-১১৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্যাকেট আটা ৭০ টাকা ও খোলা আটা ৬৫ টাকা থেকে কমে ৬০, ছোলা বুট ৮৫-৯০ টাকা এবং প্যাকেট ময়দা ৭৫ টাকা থেকে বেড়ে ৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে আগের মতোই মসুর ডাল (মাঝারি) ১১০-১২০ টাকা, চিকন ১৩০-১৪০ টাকা, মুগডাল ১৪০-১৫০ টাকা এবং বুটডাল ৯৫-১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ব্রয়লার মুরগির ডিমের হালি ১-২ টাকা কমে ৩৫-৩৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, গরুর মাংস ৬২০-৬৫০ টাকা এবং খাসির মাংস ৮০০-৯০০ টাকায় কেজি বিক্রি হচ্ছে।

এদিক মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায়, আকারভেদে রুইমাছ ২৫০-৩০০ টাকা, মৃগেল ২২০-২৫০ টাকা, কারপু ২০০-২২০ টাকা, পাঙাস ১৫০-১৬০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০-১৬০, কাতল ৪০০-৪৫০ টাকা, বাটা ১৬০-১৮০ টাকা, শিং ৩০০-৪০০ টাকা, সিলভার কার্প ১৫০-২৫০ টাকা এবং গছিমাছ ৬০০-৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

জিতু কবীর/জেএস/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।