দুই বছর পরপর হবে অর্থনৈতিক শুমারি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩১ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৭

পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, দেশের অর্থনৈতিক পরিসর ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। আমরা উন্নত দেশ হওয়ার দিকে এগুচ্ছি। তাই বিভিন্ন নীতি পরিকল্পনার জন্য অর্থনীতি সংক্রান্ত সমসাময়িক তথ্য-উপাত্তের প্রয়োজন। এজন্য আগামীতে প্রতি দুইবছর অন্তর দেশের অর্থনৈতিক শুমারি করা এবং প্রতিবছর শুমারির তথ্য হালনাগাদ করার চিন্তাভাবনা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের পরিসংখ্যান ভবনে আয়োজিত ‘স্ট্যাটিস্টিক্যাল বিজনেস রেজিস্টার এর খসড়া প্রশ্নপত্র বিষয়ে মতামত প্রদান কর্মশালা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অর্থনৈতিক শুমারি প্রকল্প-২০১৩ এর আওতায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কেএম মোজাম্মের হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে অর্থনীতিবিদ, পরিসংখ্যানবিদ, গবেষক, সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, বিআইডিএস, এফবিসিসিআইসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ১০ বছরে একবার পরিচালিত শুমারির ওপর নির্ভর করা সঠিক হবে না। প্রকৃতগতভাবে অর্থনৈতিক শুমারি বা স্ট্যাটিস্টিক্যাল বিজনেস রেজিস্টার মূলত একই জিনিস। দুটোকে একীভূত করে অর্থনৈতিক তথ্যের ভাণ্ডার গড়ে তোলা হবে। শহরের তুলনায় গ্রামীণ অর্থনীতির বৈচিত্রকরণে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। কিন্তু পরিসংখ্যানে সে তথ্য উঠে আসছে না। মধ্যম পর্যায়ে কৃষক বা ব্যবসায়ীদের বিষয়ে কোন তথ্য পাওয়া যায় না। বিজনেস রেজিস্টার বা অর্থনৈতিক শুমারি নিয়মিত হলে বাস্তব অবস্থা উঠে আসবে।

এমএ/জেডএ/বিএ