আচারের টানে পঞ্চরসে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৫৭ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৮
আচারের টানে পঞ্চরসে

টক-ঝাল-মিষ্টি অথবা একই সঙ্গে সব স্বাদের আচারের পসরা সাজিয়েছে ‘পঞ্চরসের আচার সিরাজ ভাইয়ের নিজ হাতে তৈরি’ নামের একটি স্টল। এবারের বাণিজ্য মেলার পূর্ব প্রান্তে সুন্দরবন ইকোপার্কের পাশে ১৮৪ নম্বর স্টলে রয়েছে হরেক রকম আচারের সম্ভার। পুরুষের তুলনায় নারীদের আচারের প্রতি টান বেশি। এ কারণে মেলায় আগত নারীরা আচারের একটু স্বাদ নিতে ছুটে আসছেন পঞ্চরসের স্টলে।

স্টলের ইনচার্জ জয়নাল আবেদিন বলেন, তাদের স্টলে প্রায় ২২ পদের আচার রয়েছে। আম, বরই, জলপাই, চালতা, তেঁতুল, কামরাঙ্গা, আমলকি, রসুনের পাশাপাশি এমন কিছু পদের আচার এখানে আছে, যার স্বাদ রাজধানীবাসীর অনেকেই আগে নেননি।

আচারের মান সম্পর্কে তিনি বলেন, সম্পূর্ণ প্রাকৃতিকভাবে সিলেটে এসব আচার তৈরি হয়। সিলেট, চট্টগ্রাম, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২০ বছর ধরে আমরা ব্যবসা করছি। বিভিন্ন সময় সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আমাদের আচারের মান পরীক্ষা করেছে। স্বাস্থ্যহানিকর কিছু তারা পায়নি।

fair

এবারের বাণিজ্য মেলায় তারা প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণ করেছেন। যারা আচার সংগ্রহ করছেন তারা প্রথমে স্বাদ গ্রহণ করে পরে কিনছেন। মান নিয়ে এখনো কেউ প্রশ্ন তোলেননি।

এছাড়া স্বাদ পরখ করতে ক্রেতারা বিভিন্ন পদের আচার অল্প পরিমাণ কিনছেন। মেলার প্রথমদিকে যারা আচার সংগ্রহ করেছেন তারা পরে এসে বেশি করে আচার নিয়ে যাচ্ছেন। ‘আশা করি মেলায় ভালো ব্যবসা হবে। স্টলটি মেলার সম্মুখভাগে হলে ক্রেতা আরো বাড়তো’- বলেও জানান তিনি।

এখানে বিরল স্বাদের আচারের মধ্যে রয়েছে চিকেন চাটনি, কাঁচাকলা, পেঁপে, কচুর লতি, তিত করলা, কিসমিস, সৌদি-খেজুর, চেরি, সাতকরা (সিলেটের নামকরা ফল), বিলম্বি, বোম্বাই ও দেশীয় মরিচ ও আলুবোখারার আচার। এগুলো ভালো বিক্রি হচ্ছে বলেও জানান জয়নাল আবেদিন।

fair

বেচাবিক্রি সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রতিদিন ১৫-২০ হাজার টাকার আচার বিক্রি হচ্ছে। সর্বনিম্ন মূল্য কেজিপ্রতি ৬০০ এবং সর্বোচ্চ ১২০০ টাকা।

পঞ্চরসের আচার কেনা ফাহমিদা বেগম বলেন, মেলায় ঘুরতে ঘুরতে হঠাৎ আচারের দোকানটিতে চোখ পড়লো। প্রথমে ১০০ গ্রাম আচার কিনে স্বাদ নেই। পছন্দ হওয়ায় বাসার জন্য বেশি করে সংগ্রহ করি।

এই গৃহিণীর মতো আরো অনেকে পঞ্চরসের আচার কিনছেন। তাদের মতে, পঞ্চরসের আচারের মজাই আলাদা।

এমইউএইচ/এমএআর/আইআই