বিস্কুট ও খাবার স্টলের বিক্রি জমজমাট

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:০৩ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ০৫:২৬ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০১৮
বিস্কুট ও খাবার স্টলের বিক্রি জমজমাট

বাচ্চাদের নিয়ে মেলায় আসলেন আর ভ্যারাইটিস বিস্কুটের প্যাকেজ নেবেন না, তা কি হয়? বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রায় সব ধরনের বিস্কুট পাওয়া যাচ্ছে এবারের ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায়। সঙ্গে রয়েছে মূল্যছাড় ও বিভিন্ন অফার।

বন্ধুবান্ধব বা পরিবার-পরিজন নিয়ে মেলায় এসে ইচ্ছা করলেই যে কেউ গ্রহণ করতে পারেন মজাদার সব খাবার। দাম একটু বেশি হলেও সবাই মিলে খাবার গ্রহণের মজাই আলাদা, পরিতৃপ্তও বেশ। প্রতিবারের ন্যায় এবারও ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় দেশি-বিদেশি খাদ্যপণ্য ও গৃহসামগ্রীর নানা স্টল ও প্যাভিলিয়ন বসেছে। বিক্রেতারা বিভিন্ন লোভনীয় অফার দিয়ে পণ্যের বেশি বিক্রির চেষ্টা করছেন। মেলায় আগত দর্শনার্থীরা আকর্ষণীয় অফার পেয়ে ছুটছেন এসব প্যাভিলিয়নে। 

মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায়, খাদ্যপণ্যের মধ্যে বিস্কুটের প্যাভিলিয়ন ও স্টলে প্রচুর সংখ্যক ক্রেতা-দর্শনার্থীর ভিড়। প্রাণ, অলিম্পিক, কোকোলা, ফু-ওয়াং, হক, নাবিস্কো, আকিজ ফুড, ইফাদ, কিষোয়ান, সজিবসহ অন্য প্যাভিলিয়ন ও স্টলে দুপুরের পর তিল ধারণের যেন ঠাঁই নেই।

jagonews24

নাবিস্কো বিস্কুটের প্যাভিলিয়ন ইনচার্জ তানজিলুর রহমান বলেন, ১৯৫৩ সাল থেকে দেশের ঘরে ঘরে নাবিস্কো বিস্কুট জনপ্রিয়। এরই ধারাবাহিকতায় মেলায় আগতদের জন্য নানা অফার নিয়ে এসেছি আমরা। ২০০ টাকার নাবিস্কো ইত্যাদি প্যাকেজ, ২৫০ টাকার নাবিস্কো টক-ঝাল-মিষ্টি প্যাকেজ, ৩০০ টাকায় নাবিস্কো রকমারি অফারের সঙ্গে ৪০ থেকে ৫০ আইটেমের বিস্কুট রয়েছে। বেচাকেনাও ভালো বলে জানান তানজিলুর।

অলিম্পিকের সেলসম্যান হৃদয় বলেন, প্রচুর ক্রেতা আসছেন। গতবারের চেয়ে এবার বিক্রিও ভালো। কিষোয়ানের মার্কেটিং অফিসার আব্দুল জব্বার বলেন, আমাদের প্যাভিলিয়নটি একটু ভেতরে। এরপরও যা বিক্রি হচ্ছে খারাপ নয়।

প্রাণ অলটাইমের সেলসম্যান সজিব বলেন, এখানে অলটাইমের একটি লাইভ ফ্যাক্টরি স্থাপন করা হয়েছে। গরম গরম ব্রেড ও কুকিজ খাওয়ার সুযোগের পাশাপাশি রয়েছে ভ্যারাইটিজ বিস্কুটের কমবো অফার। যে কেউ ইচ্ছা করলে এখান থেকে সাশ্রয়ী দামে মজাদার বিস্কুটের স্বাদ নিতে পারেন। 

মজাদার প্রাণ ঝটপট, সিপি ফুড, পর্যটন কর্পোরেশনসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের খাবারের দোকানগুলোতে রয়েছে বাহারি সব খাবার। এর বাইরে বেশকিছু খাবারের দোকান রয়েছে যারা তেহারি, চিকেন, ফ্রাইড রাইস, নুডলস ও মুখরোচক বিভিন্ন খাবার বিক্রি করছে। মেলায় কেনাকাটার ফাঁকে সবাই একবারের জন্য হলেও খাবারের স্টলগুলোতে ঢুঁ মারছেন। 

প্রাণ ঝটপটের কর্মকর্তা আনিস বলেন, রেডি খাবারে ঝটপটের জুড়ি নেই। মেলায় ভোজনরসিকদের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করাই আমাদের প্রয়াস। বিক্রিও হচ্ছে বেশ। দুপুরের পর লম্বা লাইন পড়ে যায়। দর্শনার্থীরাও তৃপ্তির সঙ্গে খাবার গ্রহণ করছেন। মেলায় অংশ নেয়ার সার্থকতাই এখানে।

এমএ/এমএআর/আরআইপি