২২ হাজার কোটি টাকা লোপাটের তথ্য বিভ্রান্তিকর : বিএবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০২ পিএম, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮

ব্যাংকিং খাত থেকে ২২ হাজার কোটি টাকা লোপাট তথ্য অসত্য ও বিভ্রান্তিকর বলে জানিয়েছে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর পরিচালকদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস (বিএবি)।

বৃহস্পতিবার (১৩ ডিসেম্বর) বিএবির ২৫তম বার্ষিক সাধারণ সভায় এ কথা বলা হয়।

এর আগে শনিবার (৮ ডিসেম্বর) ঢাকায় সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ‘বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত নিয়ে আমাদের করণীয় কী’শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করে। সেখানে অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে গেল প্রায় এক দশকে ব্যাংক থেকে ২২ হাজার ৫০২ কোটি টাকা লোপাট হয়েছে বলে জানানো হয়। ২০০৮-১৭ পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি ১৪টি ব্যাংকের মাধ্যমে এসব অর্থ খোয়া গেছে বলে উল্লেখ করা হয়।

এ তথ্য প্রকাশ ও প্রচার করায় বিএবি উদ্বেগ প্রকাশের পাশাপাশি নির্বাচনকে সামনে রেখে এ ধরনের বিভ্রান্তিকর মিথ্যা তথ্য পরিবেশনের জন্য তীব্র নিন্দা জানায়।

সভায় বিএবির সদস্যরা বলেন, ব্যাংকিংখাতে উল্লেখিত সময়ে আট লাখ কোটি টাকার বেশি বিনিয়োগ হয়েছে। গত ১০ বছরে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ও ব্যাপক শিল্পায়ন দেশের প্রবৃদ্ধির হারকে উচ্চমাত্রায় পৌঁছে দিয়েছে। দেশের আর্থিকখাত যখন ধারাবাহিক উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ঠিক সে সময়ে এ ধরনের মিথ্যা তথ্য পরিবেশন আর্থিক খাতকে ক্ষতিগ্রস্থ করবে বলে আশংকা প্রকাশ করেন তারা।

আর্থিকখাত বিশেষত ব্যাংকিং খাতের মত স্পর্শকাতর খাতকে কোনো দল বা গোষ্ঠির রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করলে অর্থনৈতিক অগ্রগতি ক্ষতিগ্রস্থ হবে। দেশের ব্যাংকিং খাতের এ অব্যাহত অগ্রগতি ধরে রাখতে বিএবি, বাংলাদেশ ব্যাংক, অর্থমন্ত্রণালয়, গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষ ও দেশের প্রতিটি নাগরিকের নিকট ইতিবাচক ভূমিকা প্রত্যাশা করে।

বিএবির ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. নাজমুল হাসানের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএবির ভাইস চেয়ারম্যান ও মার্কেন্টাইল ব্যাংকের পরিচালক শহিদুল আহসান, নির্বাহী কমিটির সদস্য পূবালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, প্রিমিয়ার ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. এইচ বি এম ইকবাল, এনসিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান আলহাজ নূরুন নেওয়াজ, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের চেয়ারম্যান প্রফেসর আনোয়ারুল আজিম আরিফ, বিএবির রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেইনিং সেন্টারের মেম্বার সেক্রেটারি এ কে এম নুরুল ফজল বুলবুল, মধুমতি ব্যাংকের চেয়ারম্যান হুমায়ন কবির, এসবিএসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান এস এম আমজাদ হোসেন, সাউথইস্ট ব্যাংকের পরিচালক আজিম উদ্দিন আহমেদ এবং ইউনিয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান শহিদুল আলমসহ বিএবির সদস্যভুক্ত ব্যাংকের প্রতিনিধিরা।

এসআই/এএইচ/এমকেএইচ