এখনও প্রস্তুত নয় মেলার মিডিয়া কর্নার, সংবাদ প্রকাশে প্রতিবন্ধকতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:০২ পিএম, ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

২৪তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার পঞ্চম দিনেও প্রস্তুত হয়নি সাংবাদিকদের জন্য বরাদ্দ দেয়া মিডিয়া কর্নার। সংবাদকর্মীদের সংবাদ তৈরি ও তা কর্মক্ষেত্রে পাঠাতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন সংবাদকর্মীরা।

মিডিয়া সেন্টারে গিয়ে দেখা যায়, সাংবাদিকদের জন্য সেন্টারের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেখানে কোনো চেয়ার-টেবিলের ব্যবস্থা করা হয়নি। এমনকি সেন্টারের ভেতরে প্রবেশও করা যাচ্ছে না।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল পরিবর্তন.কমের প্রতিবেদক ফররুখ বাবু বলেন, ‘আজ মেলার পঞ্চম দিন চলছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সাংবাদিকদের জন্য বরাদ্দ দেয়া মিডিয়া সেন্টার ব্যবহারের উপযোগী নয়।’

মেলায় টিকিট কেটে প্রবেশ করেন ঢাকা টাইমসের প্রতিবেদক জহির রায়হান। বলেন, ‘গত তিন বছর বাণিজ্য মেলার সংবাদ সংগ্রহ করেছি। সে সময়গুলোতে দেখা গেছে, অফিসের আইডি কার্ড দেখালেই মেলায় প্রবেশ করতে দেয়া হতো। গত বছর সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রীও বলেছিলেন, অফিস আইডি কার্ড থাকলেই বিনা টিকিটে মেলায় প্রবেশ করতে দেয়া হবে। কিন্তু এবার তা হচ্ছে না।’

তিনি আরও অভিযোগ করেন, ‘ইপিবি চরম অব্যবস্থাপনা দেখিয়েছে। প্রথমত সংবাদিকদের মিডিয়া কার্ড দেয়ার ক্ষেত্রে মেলার প্রথম দিন মেলা প্রাঙ্গণে কার্ড দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু এখন থেকে কাউকে কার্ড দেয়া হয়নি। মেলার দ্বিতীয় দিন কাওরান বাজারের ইপিবি ভবন থেকে মিডিয়া কার্ড পেতে বেগ পেতে হয়েছে।’

‘ফলে সাংবাদিকদের নিউজ তৈরি ও তা অফিসে পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতার তৈরি হচ্ছে। সাংবাদিকদের মাধ্যমে বাণিজ্য মেলা সম্পর্কে দেশ ও দেশের মানুষ জানতে পারেন। তাদেরই যদি কাজের পরিবেশ তৈরি করে দেয়া না হয়, তাহলে বুঝতে হবে এখানে অন্য উদ্দেশ্য আছে।’

সাংবাদিকদের অবহেলা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন ফররুখ বাবু।

সারাবাংলা.নেটের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক এমদাদুল হক তুহিন বলেন, ‘ইপিবি চরম অব্যবস্থাপনা দেখিয়েছে। গতবারও মিডিয়া সেন্টারে বসার জায়গার সংকট ছিল। এবার এখন পর্যন্ত মিডিয়া সেন্টার প্রস্তুত করা হয়নি। এটা সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে।’

বাংলাদেশ পোস্টের প্রতিবেদক মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, ‘খুব দ্রুত এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া উচিত। যাতে করে সাংবাদিকরা তাদের দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করতে পারেন।’

দৈনিক দিন প্রতিদিনের সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘মেলার মিডিয়া সেন্টারটি খুব দ্রুত কর্তৃপক্ষের নজরে এনে ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এত দিনেও মিডিয়া সেন্টারের কাজ শেষ না হওয়া কোনোভাবে কাম্য নয়।’

মেলায় প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়ন, রেস্তোরাঁ ও স্টলের মোট সংখ্যা ৬০৫টি। এর মধ্যে রয়েছে প্যাভিলিয়ন ১১০টি, মিনি প্যাভিলিয়ন ৮৩টি ও রেস্তোরাঁসহ স্টলের সংখ্যা ৪১২টি। সব প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়ন, রেস্তোরাঁ ও স্টল নির্মাণের কাজও পুরোপুরি শেষ হয়নি।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) মহাপরিচালক-১ অভিজিৎ চৌধুরী জাগো নিউজকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত কেন মিডিয়া সেন্টার তৈরি হয়নি, কার্ড দেয়ার ক্ষেত্রে জটিলতা তৈরি হচ্ছে কি না, এসব আমি বলতে পারব না। এটা মেলার পরিচালক বলতে পারবেন।’

এ বিষয়ে ফোনে যোগাযোগ করা হলে বাণিজ্য মেলার পরিচালক আবু হেনা মোরশেদ জামান ফোন রিসিভ করেননি। মেলার সদস্য সচিব ও ইপিবির উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আবদুর রউফকেও এ বিষয়ে একাধিকবার ফোন করা হলে তিনিও রিসিভ হয়নি।

প্রদীপ দাস/বিএ/জেআইএম