আজীবন সম্মাননায় ভূষিত প্রয়াত আমজাদ খান চৌধুরী‌

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:১২ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৯

দে‌শের বেসরকা‌রি শিল্প ও বাণিজ্য খা‌তে বি‌শেষ অবদানের স্বীকৃ‌তি হিসেবে ‘আজীবন সম্মাননা’ (মরণোত্তর) পে‌লেন প্রয়াত ‌শিল্প উ‌দ্যোক্তা ও দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্র‌তিষ্ঠাতা মেজর জেনারেল (অব.) আমজাদ খান চৌধুরী।

শনিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আইএফআইসি ব্যাংক-সমকাল শিল্প ও বাণিজ্য পুরস্কার-২০১৮ এ আজীবন সম্মাননা (মরণোত্তর) প্রদান করা হয়। কৃ‌ষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক প্রধান অ‌তিথি হিসেবে এ সম্মাননা প্রদান ক‌রেন।

এ সময় আমজাদ খান চৌধুরীর সু‌যোগ্য দুই সন্তান বর্তমানে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আহসান খান চৌধুরী ও প্রাণ গ্রু‌পের প‌রিচালক (ক‌র্পো‌রেট ফাইন্যান্স) উজমা চৌধুরী ক্রেস্ট ও সনদ গ্রহণ ক‌রেন।‌

parn

প্রথমবা‌রের মতো আ‌য়ো‌জিত বেসরকা‌রি পাঁচ‌টি খা‌তের শিল্প ও বাণিজ্য উ‌দ্যোক্তা‌দের বি‌শেষ অবদা‌নের স্বীকৃ‌তি হিসেবে পাঁচ ব্যক্তি ও প্র‌তিষ্ঠান‌কে সম্মাননা দেয়া হয়।

এর ম‌ধ্যে মৎস্য চাষ ক‌রে বর্ষসেরা নারী উদ্যোক্তার পুরস্কার পান আফিয়া খানম ফিশারিজ-এর স্বত্বাধিকারী রুবা খানম, বর্ষসেরা এসএমই উদ্যোক্তা পুরস্কার পান কেপিসি ইন্ডাস্ট্রির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী সাজেদুর রহমান, বর্ষসেরা তরুণ উদ্যোক্তা পুরস্কার পান ফরচুন সু লিমিটেডের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান এবং বৃহৎশিল্প উদ্যোক্তা পুরস্কার পায় ওয়াল্টন গ্রুপ। ওয়াল্টনের প‌ক্ষে পুরস্কার নেন প্র‌তিষ্ঠান‌টির নির্বাহী প‌রিচালক হুমায়ুন ক‌বির। অনুষ্ঠা‌নে উ‌দ্যোক্তাদের সম্মাননা ক্রেস্ট, সনদ ও নগদ দুই লাখ টাকার চেক প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠা‌নে বাবার আজীবন সম্মাননা (মরণোত্তর) গ্রহণকা‌লে সং‌ক্ষিপ্ত অনুভূতি ব্যক্ত ক‌রেন আহসান খান চৌধুরী। তি‌নি ব‌লেন, আমার বাবাকে সম্মাননা দেয়ার জন্য আইএফআইসি-সমকাল‌ পরিবারকে ধন্যবাদ জানাই। আপনারা বাবার জন্য দোয়া করবেন। আমরা চেষ্টা করছি বাবাকে অনুসরণ করে কোম্পানিকে এগিয়ে নিতে। আপনারা আমা‌দের এ চেষ্টায় সহযোগিতা করবেন।‌

pran

উজমা চৌধুরী ব‌লেন, আমার বাবা বেঁচে থাকলে আজ‌কের এ পুরস্কা‌রে বেশি খুশি হতেন। উনি অনেক বড় স্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই স্বপ্ন পূরণ করতে পারলে সেটাই হ‌বে আমাদের ও দেশের জন্য বড় পুরস্কার। এ‌টি কর‌তে পার‌লেই উনি (বাবা) বেশি আনন্দিত হবেন। আমরা আমাদের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, আপনারা এই চেষ্টায় সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন এটাই আমাদের কামনা।

দৈনিক সমকা‌লের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তা‌ফিজ শ‌ফির সভাপ‌তি‌ত্বে বি‌শেষ অ‌তিথি ছি‌লেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, ব্যবসায়ী‌দের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, আইএফআইসি ব্যাং‌কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এম‌ডি) ও প্রধান নির্বাহী শাহ এ সরোয়ার প্রমুখ। অনুষ্ঠা‌নে পুরস্কারপ্রাপ্ত‌দের নাম ঘোষণা ক‌রেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ।

আমজাদ খান চৌধুরী:

আমজাদ খান চৌধুরীর জন্ম ১৯৩৯ সালের ১০ নভেম্বর। তিনি নাটোর জেলার সম্ভ্রান্ত চৌধুরী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মরহুম আলী কাশেম খান চৌধুরী ও মা মরহুমা আমাতুর রহমান। আমজাদ খান চৌধুরীর সন্তানরা হলেন- আজার খান চৌধুরী, ডা. সেরা হক, আহসান খান চৌধুরী এবং উজমা চৌধুরী।

pran

ঢাকার নবকুমার ইনস্টিটিউট থেকে শিক্ষাজীবন শুরু তার। ১৯৫৬ সালে তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন। পরবর্তীতে অস্ট্রেলিয়ান স্টাফ কলেজ থেকে গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। কর্মজীবনে তিনি সেনাবাহিনীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। আমজাদ খান চৌধুরী ১৯৮১ সালে মেজর জেনারেল হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী থেকে অবসর গ্রহণ করেন। একই বছর রংপুর ফাউন্ড্রি লিমিটেড (আরএফএল) প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের যাত্রা শুরু করেন।

বহুগুণে গুণান্বিত আমজাদ খান চৌধুরী বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যিক সংগঠন মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই), ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই), ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড (আইডিসিএল), বাংলাদেশ ডেইরি অ্যাসোসিয়েশনসহ বিভিন্ন সংগঠনের সভাপতি, পরিচালকসহ বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এছাড়া তিনি আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব), বাংলাদেশ এগ্রো প্রসেসরস অ্যাসোসিয়েশন (বাপা), আন্ডারপ্রিভিলেজড চিলড্রেন্স এডুকেশন প্রোগ্রামের (ইউসেপ) প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।

pran

দেশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে তিনি দেশের বেসরকারি খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। কৃষি ও কৃষিজাত পণ্যের বহুমুখী ব্যবহার এবং এ শিল্পের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে তিনি অগ্রণী ব্যক্তিত্ব হিসেবে পরিচিত। সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে তার অবদান মনে রাখবে সবাই। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তার প্রচেষ্টা দেশের ব্যবসা ক্ষেত্রে এনে দিয়েছে ব্যাপক সমৃদ্ধি।

দেশের অন্যতম বৃহৎশিল্প পরিবার প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা দেশে কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাত শিল্পের পথিকৃৎ আমজাদ খান চৌধুরী ২০১৫ সালের ৮ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এসআই/বিএ