ধনিয়াপাতা ৩২০ টাকা কেজি!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১২:০৪ পিএম, ১১ নভেম্বর ২০১৯

‘স্যার, দামাদামি করতে পারবেন না, এক দাম ৩২০ টাকা।’ ধনিয়াপাতার দাম শুনে কিছুক্ষণ দোকানির মুখের দিকে তাকিয়ে রইলেন রাজধানীর আজিমপুরের বাসিন্দা একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আবদুস সোবহান্। আজ (সোমবার) প্রাতঃভ্রমণ শেষ করে ফেরার সময় কিছু শাকসবজি কিনতে আজিমপুর কবরস্থানের সামনে ফুটপাতে ভ্যানগাড়ির শাকসবজি বিক্রেতার কাছে ধনিয়াপাতার দাম জানতে চান। তখন দোকানি এই মন্তব্য করেন।

মাত্র কয়েকদিন আগেও তো ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে জানালে দোকানি বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বিরূপ আবহাওয়ায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আড়তে কম মালামাল আসছে্। চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম থাকায় শুধু ধনিয়াই নয়, কাঁচামরিচ, উস্তা, শসা, করলা, ফুলকপি, বরবটি, লাউ, মিষ্টি কুমড়া, কাঁচাকলা, পটল, চিচিঙ্গা ও ঢেঁড়সসহ সব ধরনের শাকসবজির দাম বাড়তি। আজও কারওয়ান বাজার থেকে প্রতি কেজি ধনিয়া ৩০০ টাকা দরে কিনে এনেছি।’

Dhonia-1

তবে আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ায় আজ থেকে আড়তে মালামাল আসবে, দামও কমে আসবে বলে মনে করছেন খুচরা এই সবজি বিক্রেতা।

খুচরা বাজার ঘুরে ও ক্রেতা-বিক্রেতাদারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে বাজারে লাউ প্রতি পিস ৫০-৬০ টাকা, ফুলকপি প্রতিপিস ৪৫-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ৮০-১০০ টাকা, শসা ৮০-১০০ টাকা, শিম ৭০-৮০ টাকা, উস্তা ৮০ টাকা, ঝিঙা ৫০-৫৫ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, করলা ৫৫-৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, পটল ৫০-৫৫ টাকা, টমেটো ১০০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা এবং ঢেঁড়স ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। মাত্র তিন দিন আগেও এসব সবজির দাম কম ছিল।

এমইউ/এসআর/পিআর