সব সুবিধা এক জায়গায়, বাড়ছে মেলায় কর দেয়ার আগ্রহ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:১৭ পিএম, ১৫ নভেম্বর ২০১৯

স্বাভাবিক সময়ে আয়কর দিতে গেলে কাগজপত্রের জটিলতা, কর্মকর্তাদের অসহযোগিতা, বারবার যাওয়া-আসাসহ নানা ধরনের ঝামেলায় পড়তে হয় করদাতাদের। ইচ্ছা থাকলেও এসব ঝামেলার কারণে অনেকেই আয়কর দিতে যান না। কিন্তু আয়কর মেলায় কাগজপত্রের সেবা, কর্মকর্তাদের সহযোগিতা, ব্যাংক সুবিধাসহ সবধরনের সুবিধা একসঙ্গে মেলে। তাই আয়কর মেলাতেই আয়কর দিতে উৎসাহী হয়ে উঠেছেন করদাতারা।

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর রমনার অফিসার্স ক্লাবে আয়কর মেলায় আগত করদাতাদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।

শুক্রবার দ্বিতীয় দিনের মতো মেলা চলছে। প্রথম দিনের (১৪ নভেম্বর) তথ্য দিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বলছে, গত এক দিনে তাদের আয়কর আদায় হয়েছে ৩২৩ কোটি ১৮ লাখ ৯৩ হাজার ৮৮৫ টাকা। মোট সেবা গ্রহণ করেছেন ১ লাখ ৩৫ হাজার ৭৫৮ জন, রিটার্ন দাখিল করেছেন ৬৩ হাজার ২৭২ জন এবং নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন হয়েছে ৪ হাজার ৩৬৬টি।

মেলার দ্বিতীয় দিন আয়কর দিতে এসেছেন সরকারি কর্মচারী মো. নঈম জাহাঙ্গীর। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমি নিয়মিত আয়কর দিই। আজকে মেলায় আয়কর দিতে এসেছি। এখন ফরমটা পূরণ করে জমা দিয়ে দেব।’

তিনি বলেন, ‘আমি ৭ থেকে ৮ বছর ধরে নিয়মিত আয়কর দিচ্ছি। মেলাতে আয়কর দিতে কিছুটা সুবিধা। এখানে একসঙ্গে সবগুলো সেবা পাওয়া যায়। যেমন ব্যাংক, টাকা জমা দেয়া কিংবা কারও কোনো সহযোগিতা লাগলে পাওয়া যায়। ফটোকপিও পাওয়া যায়। তাই মেলাতেই আয়কর দিই।’

tax-(3).jpg

২০১৪ সাল থেকে আয়কর দেন রাজধানীর শান্তিনগরের বাসিন্দা আবু নোমান। তিনি বলেন, ‘আমি রিটার্ন জমা দিতে এসেছি। সবাই এখানে সহযোগিতা করছেন। এনবিআরের পাশাপাশি সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা আমাকে বেশ সহযোগিতা করেছেন। রিটার্ন ফরম পূরণের সময় তারা বেশ সহযোগিতা করেছেন।’

মেলা ছাড়া ফরম পূরণের সময় অনেক ঝামেলায় পড়তে হয় উল্লেখ করে আবু নোমান বলেন, ‘মেলা ছাড়া আয়কর দিতে গেলে যারা পূরণ করে, তাদের কাছে যাওয়া লাগতো। নানা ধরনের অসুবিধা হতো। আমরা অনেক কিছুই বুঝি। কিন্তু যেটা বুঝতে পারছি না, জিজ্ঞাসা করলেই তারা সেটা বলে দিচ্ছেন। মেলা ছাড়া এই সুবিধা পাওয়া যায় না।’

উৎসবমুখর পরিবেশে রিটার্ন জমা দিতে পারায় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান আগতরা। এনবিআরের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর ৮ বিভাগের ৫৬টি জেলা ৫৬টি উপজেলাসহ মোট ১২০টি জায়গায় আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবার মেলার পরিধি গত বছরের তুলনায় কয়েকগুণ বাড়ানো হয়েছে। ৫২টি আয়কর রিটার্ন বুথ, ৫৩টি হেল্প ডেস্ক, ব্যাংক বুথ (সোনালী ১৩টি, জনতা ৫টি ও বেসিক ব্যাংকের ৪টি), ই-পেমেন্টের জন্য ৩টি, ই-ফাইরিংয়ের জন্য ২টি পৃথক বুথ বসানো হয়েছে। এ ছাড়া মেলায় আগত করদাতাদের তাৎক্ষণিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের জন্য একটি মেডিকেল বুথ রয়েছে।

আগামী ২০ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে এই মেলা। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলবে এ মেলা।

পিডি/এনএফ/এমএস