জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় কাজ পাচ্ছে টোয়া কর্পোরেশন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:২৩ পিএম, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯

দেশে জাপানি বিনিয়োগকারীদের জন্য নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে এক হাজার ১০ একর জমিতে গড়ে উঠছে অর্থনৈতিক অঞ্চল। এ অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভূমি উন্নয়ন কাজে জাপানের সবচেয়ে পুরোনো নির্মাণ কোম্পানি টোয়া কর্পোরেশনকে নির্বাচন করেছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। এ প্রকল্পে ব্যয় হবে এক হাজার ৮১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা।

প্রকল্পটি আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উত্থাপন হওয়ার কথা রয়েছে। বৈঠকে সভাপতিত্বে করবেন কমিটির আহ্বায়ক অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান স্বাক্ষরিত অনুমোদনের জন্য ক্রয় কমিটিতে পাঠানো বেজার প্রস্তাবে বলা হয়েছে, জাপানের টোয়া কর্পোরেশন এবং টোকিও কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন বেজার টেন্ডারে অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে টোয়া কর্পোরেশনের দর সর্বনিম্ন। সুতরাং এ অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভূমি উন্নয়নকাজ টোয়া কর্পোরেশনের মাধ্যমে করা যায়।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে প্রায় এক হাজার ১০ একর জমিতে জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার সমঝোতা চুক্তিটি সই হয় ২০১৬ সালের ২ মে। এই অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার আলোচনা শুরু হয় ২০১৩ সালে। তবে নানা কারণে এই অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়। তবে এটি প্রতিষ্ঠায় আবার কাজ শুরু হয়েছে।

গত ১৭ নভেম্বর ট্যাক্স জটিলতা ও বাংলাদেশে ব্যবসার পরিবেশ নিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে বৈঠক করে জাপানের রাষ্ট্রদূত নাওকি ইতোর নেতৃত্বে দেশটির একটি প্রতিনিধি দল।

বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী জানান, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সার্বিক খাতে বাংলাদেশে বিশাল বিনিয়োগ করবে নিতসু, জেত্রো, নিপ্পন স্টিল, সুমিতোমো, টেক্কেন, হোন্ডা ও সজিত কর্পোরেশনের মতো বড় বড় জাপানি কোম্পানি। এরই মধ্যে এসব কোম্পানি স্বল্প পরিসরে দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে। সামনে বড় আকারের বিনিয়োগ আসছে। শিগগিরই দুই দেশের প্রতিনিধিরা বসে বিনিয়োগের পরিমাণও নির্ধারণ করবেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, জাপানিদের প্রকল্পের বিষয় আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে কোন প্রকল্প কী অবস্থায় আছে সেসব জানা গেছে। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের আড়াইহাজারে জাপানিদের জন্য বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বড় বিনিয়োগ আসছে। আমরা ওই প্রকল্পে কোনো ধরনের সমস্যা চাই না। সেজন্য আগে থেকেই সাবধান আছি।

এমইউএইচ/এসআর/পিআর