বাণিজ্য মেলায় বিদেশি প্যাভিলিয়নেও ‘বাইছা লন’ পণ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫৮ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০২০

নিম্নমানের হকারি পণ্যে এক প্রকার ছেয়ে গেছে ২৫তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। দেশি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিদেশি প্যাভিলিয়নেও ‘দেইখ্যা লন, বাইছা লন এক দাম ১৩০ টাকা’ এমন হাকডাক ছেড়ে বিক্রি করা হচ্ছে বিভিন্ন পণ্য।

অথচ মেলা শুরুর আগে আয়োজক রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) পক্ষ থেকে ঘোষণা দেয়া হয়, নিম্নমানের পণ্য নিরুৎসাহিত করে এবারের ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার গুণগত মান বাড়ানো হয়েছে। বিদেশি প্যাভিলিয়নে দেশি পণ্য বিক্রি করতে দেয়া হবে না।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে এমন ঘোষণা দেয়া হলেও সরেজমিন বাণিজ্য মেলা ঘুরে দেখা যায়, একাধিক বিদেশি প্যাভিলিয়নে নিম্নমানের পণ্যের পসরা সাজিয়ে বিক্রেতারা হাকডাক ছেড়ে ক্রেতা আকর্ষণ করছেন। রাজধানীর গুলিস্তান, মতিঝিল, ফার্মগেটের ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের মতো ‘দেইখ্যা লন, বাইছা লন এক দাম’ এমন স্লোগান তুলে ক্রেতাদের ডাকছেন বিদেশি প্যাভিলিয়নের বিক্রেতারা। যে দৃশ্য এর আগের মেলাগুলোতে বিদেশি প্যাভিলিয়নে দেখা যায়নি।

বিদেশি মিনি প্যাভিলিয়নে-৫ এ নামবিহীন এমন একটি স্টল রয়েছে। স্টলটির ওপর একটি ব্যানারে লেখা রাখা হয়েছে, ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় এবারের বিশেষ অফার যে কোনো ক্রোকারিজ পণ্য ১৩০ টাকা’। প্রতিষ্ঠানটির এমন প্রচারণা মেলার একশ্রেণির ক্রেতাদের আকৃষ্টও করছে।

প্রতিষ্ঠানটিতে দায়িত্ব পালন করা আল মামুন নামের একজন বলেন, আমাদের এখান থেকে যেই পণ্যই কেনেন প্রতিটির দাম ১৩০ টাকা। যার যেটা পছন্দ, সে সেটি বেছে নিতে পারবেন। দামাদামি করার সুযোগ নেই।

mela

বিদেশি প্যাভিলিয়নে আপনারা এভাবে পণ্য বিক্রি করছেন কেন? এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমাদের স্টলের পণ্যও বিদেশি। এখানে চীনের পণ্য আছে। এছাড়া ভারত ও থাইল্যান্ডের পণ্যও আছে। এর সঙ্গে কিছু বাংলাদেশের পণ্য আছে।

বিদেশি প্যাভিলিয়নে ১৩০ টাকার পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসা আকাশ নামের আরেকজন বলেন, আমরা চতুর্থদিন থেকে পণ্য বিক্রি করছি। ক্রেতা মোটামুটি ভালো পাচ্ছি। আশা করি, সামনে আরও ভালো বিক্রি হবে।

তিনি বলেন, আমাদের কাছে যে পণ্য আছে তার বেশিরভাগই চীনের। এছাড়া ভারতের কিছু পণ্য আছে। এর সঙ্গে বাংলাদেশের পণ্যও কিছু বিক্রি করছি। সব পণ্যের দামই একই। হাড়ি-পাতিল কিনতেও ১৩০ টাকা লাগবে, শোপিচ কিনতেও ১৩০ টাকা লাগবে।

মেলায় নিম্নমানের হকারি পণ্য বিক্রি হওয়ার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে মেলার সদস্য সচিব মোহাম্মদ আব্দুর রউফ বলেন, মেলায় যাতে নিম্নমানের পণ্য বিক্রি না হয় সেজন্য ভোক্তা অধিদফতর আছে। মেলায় আমরা তাদের জায়গা দিয়েছি। কেউ নিম্নমানের পণ্য বিক্রি করলে তারা ব্যবস্থা নেবে। তবে একটি বিষয় দেখতে হবে মেলায় যেসব পণ্য বিক্রি হচ্ছে তার ক্রেতা আছে কি না। ক্রেতা থাকলে বিক্রি তো হবেই।

এমএএস/জেএইচ/জেআইএম