মেলায় একদিনেই এক লাখ দর্শনার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০২ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০২০

এক এক করে ১৭ দিনে পা রেখেছে ২৫তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। এর মাঝে একদিন মেলা বন্ধও থেকেছে। সে হিসাবে মেলা চলেছে ১৬ দিন। এই ১৬ দিনে মেলা প্রাঙ্গণে ৫ লাখের মতো দর্শনার্থী প্রবেশ করেছেন। এর মধ্যে আজই মেলায় এসেছেন এক লাখ দর্শনার্থী। এমন তথ্য দিয়েছেন মেলার গেট ইজারাদার মীর ব্রাদার্সের মালিক মীর শহিদুল।

মীর শহিদুল জাগো নিউজকে বলেন, এবারের মেলায় দর্শনার্থীর সংখ্যা তুলনামূলক অনেক কম। মেলার প্রথম ১২ দিন ৪-৫ হাজার করে দর্শনার্থী এসেছে। এর মধ্যে গত শুক্রবার মেলা বন্ধ ছিল। ফলে ওইদিন কোনো দর্শনার্থী হয়নি। তবে গত শনিবার থেকে মেলায় দর্শনার্থী আসা শুরু হয়েছে।

‘এর মধ্যে আজ সব থেকে বেশি দর্শনার্থী এসেছেন। আমাদের হিসাবে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৭৫ হাজার দর্শনার্থী মেলায় প্রবেশ করেছে। অনেক দর্শনার্থী মেলায় প্রবেশের লাইনে আছেন। এতে আজ এক লাখ দর্শনার্থী হবে বলে ধারণা করছি।’

তিনি বলেন, আজকের দর্শনার্থী ধরে এখন পর্যন্ত ৫ লাখের মতো দর্শনার্থী মেলায় এসেছে। আশা করি, সামনের দিনগুলোতে আরও ভালো দর্শনার্থী হবে। তবে এবার মেলা ইজারা নিয়ে লোকসান গুণতে হতে পারে। কারণ ইজারা নিতে সাড়ে ৭ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। এ খরচ উঠাতে প্রতিদিন গড়ে ২৫ লাখ টাকার টিকিট বিক্রি হওয়া দরকার।

mela

তিনি আরও বলেন, প্রথম কয়েকদিন ৪-৫ হাজার করে দর্শনার্থী আসলেও গত কয়দিন ভালো দর্শনার্থী হচ্ছে। আমাদের ধারণা মেলার বাকি দিনগুলো দর্শনার্থী ভালো হবে। কারণ যারা এখনও মেলায় আসেনি তারা আসবেন। আর মেলা শুধু কেনাকাটার জায়গা না, বিনোদনেরও বড় অংশ। ঢাকার মানুষের বিনোদনের সুযোগ খুব কম। শেষ সময়ে অবশ্যই মেলায় দর্শনার্থী আসবেন।

মেলার আয়োজক রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)-এর তথ্য অনুযায়ী, এবারের মেলায় বাংলাদেশের পাশাপাশি থাইল্যান্ড, ইরান, তুরস্ক, নেপাল, চীন, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, পাকিস্তান, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, ভুটান, বুনাই, দুবাই, ইতালি ও তাইওয়ানের প্রতিষ্ঠান অংশ নিচ্ছে।

মেলায় ক্রেতারা যে সব পণ্য কিনতে পারবেন তার মধ্যে অন্যতম দেশীয় বস্ত্র, মেশিনারিজ, কার্পেট, কসমেটিক্স অ্যান্ড বিউটি এইডস, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্সস, পাট ও পাটজাত পণ্য সামগ্রী, চামড়া/আর্টিফিসিয়াল চামড়া ও জুতাসহ চামড়া জাত পণ্য, স্পোর্টস গুডস, স্যানিটারিওয়্যার, খেলনা, স্টেশনারি, ক্রোকারিজ, প্লাস্টিক সামগ্রী, মেলামাইন সামগ্রী, হারবাল ও টয়লেট্রিজ, ঘড়ি, হোম অ্যাপ্লায়েন্স, ইমিটেশন জুয়েলারি, সিরামিকস, টেবলওয়্যার, ক্যাবল, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, ফাস্টফুড, আসবাবপত্র ও হস্তশিল্পজাত পণ্য, উপহার সামগ্রী, কনস্ট্রাকশন সামগ্রী, হোম ডেকর, বেকারি পণ্য, বিদেশি বস্ত্র ইত্যাদি।

এমএএস/জেএইচ/পিআর