চিনিকলের অর্থায়ন : থাইল্যান্ড-কম্বোডিয়া যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:০৩ পিএম, ২২ জানুয়ারি ২০২০

রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলোর আধুনিকায়ন এবং পণ্য বৈচিত্র্যকরণের উদ্যোগ বাস্তবায়নে অর্থায়নের বিষয়ে আলোচনা করতে থাইল্যান্ড ও কম্বোডিয়া সফরে যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

বুধবার রাতে থাইল্যান্ডের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন শিল্পমন্ত্রী। সফরকালে তিনি ৮ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন।

প্রতিনিধিদলের সদস্য হিসেবে রয়েছেন বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের (বিএসএফআইসি) চেয়ারম্যান অজিত কুমার পাল এফসিএ, শিল্প মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মো. জিয়াউর রহমান খান, মন্ত্রীর একান্ত সচিব মো. আবদুল ওয়াহেদ, শিল্প প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব শাহ মোমিন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক বেগম ওয়াহিদা মুসাররত অনীতা, মন্ত্রণালয়ের উপ-প্রধান তথ্য অফিসার মো. আবদুল জলিল ও মন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা এ এস এম জাকারিয়া।

সফরকালে বিএসএফআইসি’র আধুনিকায়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে অর্থায়নের বিষয়ে থাই এক্সিম ব্যাংক এবং জাপান ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশনের (জেবিআইসি) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন শিল্পমন্ত্রী। এছাড়া তিনি
থাইল্যান্ডের আইউত্থায়া সুগার চ্যাং ফ্যাক্টরি পরিদর্শন করবেন এবং বাংলাদেশের চিনিকলগুলোতে আধুনিকায়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন।

আগামী ২৪ জানুয়ারি বিকেলে প্রতিনিধিদল থাইল্যান্ড থেকে কম্বোডিয়ার নমপেন যাবেন। নমপেন সফরকালে শিল্পমন্ত্রী সেখানকার চিনিকল পরিদর্শন করবেন। তিনি কম্বোডিয়ার চিনিকলে ব্যবহৃত প্রযুক্তি এবং উৎপাদিত পণ্য সম্পর্কে সরেজমিনে ধারণা নেবেন।শিল্পমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল আগামী ২৬ জানুয়ারি দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলোতে ইক্ষুজাত উন্নয়ন, রফতানিমুখী লিকার ও বিয়ার ইন্ডাস্ট্রি স্থাপন ইত্যাদি বিষয়ে প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য বিএসএফআইসি’র সঙ্গে থাইল্যান্ডের স্যুটেক ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড, সংযুক্ত আরব আমিরাতের সারকারা এবং জাপানের প্রতিষ্ঠান সুজিতের সঙ্গে গেল বছর ২৭ অক্টোবর একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

এ সমঝোতা চুক্তির আলোকে জাপান ও থাইল্যান্ডের একটি যৌথ প্রতিনিধিদল গত বছরের ১৪-১৯ নভেম্বর রাষ্ট্রায়ত্ত ৬টি চিনিকল (পাবনা, নাটোর, রাজশাহী, জয়পুরহাট, সেতাবগঞ্জ ও রংপুর) এবং এর আওতাধীন কৃষি খামার সরেজমিনে পরিদর্শন করে। এ সময় তারা চিনি কলগুলোর আবাদযোগ্য আখের জমির পরিমাণ, নদীর পানির উচ্চতা/লেভেল, মাটির গুণাগুণ, কৃষকের সক্ষমতা ইত্যাদি যাচাই করে। পরবর্তীতে তারা রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও রংপুর অঞ্চলে তিনটি চিনিকল এবং সুগার রিফাইনারি ও বিয়ার কারখানা স্থাপনের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করে। এখাতে অর্থায়নের বিষয়ে আলোচনার জন্য স্যুটেক ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেডের পক্ষ থেকে মন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

এর আগে গেল ৯-১৪ ডিসেম্বর বিএসএফআইসি’র একটি কারিগরি টিম অগ্রগামী দল হিসেবে থাইল্যান্ডের সুগার ও বিয়ার ফ্যাক্টরি পরিদর্শন ও সম্ভাব্যতা যাচাই করে। এর ধারাবাহিকতায় শিল্পমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল দুটি দেশ সফরে যাচ্ছেন।

এসআই/এমএসএইচ/জেআইএম