ভাইব্রেন্ট এখন ঢাকার প্রাণকেন্দ্র মহাখালীতে

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৫৮ এএম, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

গ্রাহকদের চাহিদা ও ব্যবসা সম্প্রসারণের ধারাবাহিকতায় ইউএস-বাংলা গ্রুপের অন্যতম প্রতিষ্ঠান ইউএস-বাংলা ফুটওয়্যারের ব্র্যান্ড ভাইব্রেন্টের আরও একটি আউটলেট উদ্বোধন করা হলো। শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার ব্যস্ততম এলাকা মহাখালীর সেনা কল্যাণ সংস্থা (এসকেএস) টাওয়ারে ২০তম সেলস সেন্টারের উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভাইব্রেন্টের হেড অব মার্কেটিং শেখ তানভীর তাপস, রিটেইল অপারেশন ম্যানেজার এস এম বেনজির সাকলাইন, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর মির্জা মুজাহিদ ও মো. কামরুল ইসলাম, জিএম-পাবলিক রিলেশনসসহ ইউএস-বাংলা গ্রুপের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

স্বল্প সময়ের মধ্যে একটি নিজস্ব ব্র্যান্ড পরিচিতি অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে ভাইব্রেন্ট। যাত্রা শুরুর পর থেকে গ্রাহকদের চাহিদা, রুচিশীলতা, আধুনিকতা ও আয়ের সক্ষমতার কথা বিবেচনায় রেখে প্রতিনিয়ত আধুনিক ডিজাইনের নারী, পুরুষ ও শিশুদের জন্য জুতার সংগ্রহ রাখছে শোরুমগুলোতে। ভাইব্রেন্ট সামগ্রীর মান ও দামের প্রতি বিশেষভাবে লক্ষ্য রেখে গ্রাহকদের উন্নতসেবা প্রদান করে যাচ্ছে। এর পণ্যসামগ্রী নিজস্ব ফ্যাক্টরিতে উন্নত প্রযুক্তিতে তৈরি।

vaibrand-2.jpg

প্রত্যেকটি ভাইব্রেন্টের শোরুমে জুতা ছাড়াও রয়েছে ভাইব্রেন্ট ব্র্যান্ডের বিভিন্ন ডিজাইনের লেদার সামগ্রী, ট্রাভেল ব্যাগ, পুরুষ গ্রাহকদের জন্য শার্ট, টি-শার্ট; শিশুদের জন্য আধুনিক ডিজাইনের ড্রেসসহ অন্যান্য লাইফ স্টাইল সামগ্রী। সব আউটলেটে প্রায় ৯০০ ডিজাইনের জুতার সংগ্রহ রয়েছে।

যাত্রা শুরুর পর থেকে পরিকল্পনা অনুযায়ী এগিয়ে চলছে ভাইব্রেন্ট। শিগগিরই বিভাগীয় শহর বরিশালে ভাইব্রেন্টের কার্যক্রম শুরু হবে। এর কার্যক্রমে গতিশীলতার লক্ষ্যে ধারাবাহিকভাবে প্রত্যেকটি জেলা শহরে এমনকি উপজেলা পর্যন্ত ভাইব্রেন্টের বিস্তার ঘটানোর পরিকল্পনা রয়েছে। কম মূল্যে আধুনিকতার ছোঁয়া দিতেই ভাইব্রেন্টের পণ্য সামগ্রী দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিতে বদ্ধপরিকর।

গ্রাহকদের সুবিধার্থে প্রত্যেকটি শোরুমেই ক্যাশে ক্রয় ছাড়াও ভিসা ও মাস্টার কার্ড গ্রহণ করা হয়। এছাড়া ইতোমধ্যে অনলাইনের মাধ্যমেও ভাইব্রেন্টের সব পণ্য গ্রাহকসেবায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

এদিকে মহাখালীর এসকেএস টাওয়ারে ভাইব্রেন্টের শোরুমে দেয়া হচ্ছে ২০ শতাংশ উদ্বোধনী মূল্যছাড়।

আরএস/এমএস