জাপান মেডিকেল সেন্টারে করপোরেট স্বাস্থ্যসেবা চালু

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:৩৭ এএম, ১৭ মে ২০২০

ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য সুরক্ষা বজায় রেখে ‘মাই সেবা’ জাপান মেডিকেল সেন্টারের চিকিৎসকরা বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং তাদের পরিবারের জন্য স্বাস্থ্য মূল্যায়ন, অনলাইন চিকিৎসকের পরামর্শ, রক্তের নমুনা সংগ্রহ এবং হাসপাতালের রেফারাল সিস্টেম সরবরাহ করছে।

শুক্রবার (১৫ মে) জাপান মেডিকেল সেন্টার থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মাই সেবা জাপান মেডিকেল সেন্টার করোনাভাইরাসের জন্য চিকিৎসকদের দ্বারা করপোরেট স্বাস্থ্য সহায়তা সেবা চালু করেছে। কেবল কারখানার শ্রমিকদের জন্য নয়, করপোরেট অফিস কর্মীদের জন্যও প্রতিটি সংস্থাকে এই মুহূর্তে নিজ নিজ কর্মস্থলের জন্য স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনার বিষয়ে বিবেচনা করতে হবে। মাই সেবা মাসিক ভিত্তিতে তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং তাদের পরিবারকে অনলাইন স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহের মাধ্যমে মালিক বা এইচআর বিভাগকে সমর্থন করবে।

তাদের সেবাসমূহ হলো- রিস্ক স্ক্রিনিং (কর্মচারীদের জন্য অনলাইন স্বাস্থ্য মূল্যায়ন এবং ডাক্তারের পরামর্শ), রিস্ক ম্যানেজমেন্ট (স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনার জন্য অনলাইন পরামর্শ), পরিবার সহায়তা (কর্মীদের পরিবারের জন্য অনলাইন ডাক্তারের পরামর্শ)।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশে কিছু জাপানি সংস্থা ইতোমধ্যে চুক্তি করে বলেছে, ‘আমরা মাই সেবা জাপান মেডিকেল সেন্টারের সঙ্গে চুক্তি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি কারণ, তারা কেবল কর্মচারীদের জন্যই নয়, তাদের পরিবারকেও সঠিক তথ্য এবং ডাক্তারদের দ্বারা অনলাইন পরামর্শ সরবরাহ করে নিয়মিতভাবে সহায়তা করে যাচ্ছে। আমরা করোনা মহামারির পরেও মাই সেবার সহায়তায় আমাদের কর্মচারীদের যত্ন নেয়ার পরিকল্পনা করছি, কারণ আমাদের প্রতিবারই ডেঙ্গু বা দীর্ঘস্থায়ী রোগের জন্য যথাযথ চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন।’

মাই সেবার লক্ষ্য হচ্ছে যেন প্রত্যেকে আইটি প্রযুক্তি ব্যবহার করে যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা পেতে পারে, যে প্রক্রিয়াটি একজন জাপানি চিকিৎসক, ডা. মরিটা (প্রধান মেডিকেল অফিসার, পিএইচডি গ্র্যাজুয়েট স্কুল অফ মেডিসিন, দ্য ইউনিভার্সিটি টোকিও) দ্বারা তত্ত্বাবধান করা হয়। বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে চিকিৎসার জন্য লক্ষণগুলো নিরীক্ষণে ‘‌অনলাইন ডাক্তার পরামর্শ’ হচ্ছে সবচেয়ে নিরাপদ এবং কার্যকর উপায়।

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক প্রফেসর ডা. এ বি এম আবদুল্লাহর মতে, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হলে চিকিৎসকের আর বেশি কিছু দেখার প্রয়োজন হয় না। রোগীর কী কী সমস্যা হচ্ছে তা রোগী নিজেই বুঝতে পারেন। ফলে টেলিফোনে রোগীর অবস্থা শুনেই চিকিৎসক প্রয়োজনীয় পরামর্শ, উপদেশ ও ওষুধ দিতে পারেন।

পিসিআর পরীক্ষা ও চিকিৎসা সুবিধার জন্য সীমিত ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও প্রতিটি সংস্থাকর্মীর সংক্রমণ ছড়ানো এবং ব্যবসা স্থগিতকরণ রোধ করার জন্য জায়গাটির স্বাস্থ্যকর ব্যবস্থাপনার চেষ্টা করতে পারে। মাই সেবা আপনার প্রয়াসকে সমর্থন করবে।

মাই সেবা জাপান মেডিকেল সেন্টারে যোগাযোগ করতে ০১৭০৮০০৮২০৫ নম্বরে কল করুন। অথবা অফিস ঠিকানা- তৃতীয় তলা, মনামা এম এস টরেন, গুলশান বাড্ডা লিংক রোড, ঢাকা- ১২১২ এ সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন।

 https://www.facebook.com/myshebaBD

এমএফ/এমএসএইচ