লভ্যাংশে ফিরল এবি, না দেয়ার সিদ্ধান্ত আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১৮ পিএম, ৩০ জুন ২০২০

পরপর দুই বছর শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ না দিয়ে ‘জেড’ গ্রুপে চলে যাওয়া এবি ব্যাংক অবশেষে ২০১৯ সালের ব্যবসার ওপর লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ব্যাংক খাতের অপর প্রতিষ্ঠান আইসিবি ইসলামী ব্যাংক আগের মতোই লভ্যাংশ না দেয়ার সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছে। লোকসানে নিমজ্জিত ব্যাংকটি সর্বশেষ কবে শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিয়েছে সে সংক্রান্ত তথ্যও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে নেই।

লভ্যাংশের বিষয়ে ব্যাংক দুটির পরিচালনাপর্ষদের নেয়া সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে।

ডিএসই জানিয়েছে, ২০১৯ সালের সমাপ্ত বছরের জন্য এবি ব্যাংকের পরিচালনাপর্ষদ শেয়ারহোল্ডারদের ৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

লভ্যাংশের বিষয়ে কোম্পানিটির পরিচালনাপর্ষদের নেয়া সিদ্ধান্ত শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদনের জন্য বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) তারিখ নির্ধারণ হয়েছে আগামী ২২ সেপ্টেম্বর। রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ আগস্ট।

সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটি সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) করেছে ১৬ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৩১ টাকা ৬৯ পয়সা।

এক সময় দেশের বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় ব্যাংকটি সমস্যায় জর্জরিত হয়ে ২০১৭ ও ২০১৮ সালে শেয়ারহোল্ডারদের কোনো ধরনের লভ্যাংশ না দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ফলে দুই বছর ধরে শেয়ারবাজারে পঁচা বা ‘জেড’ গ্রুপের তালিকায় রয়েছে ব্যাংকটি।

এদিকে লোকসানে নিমজ্জিত আইসিবি ইসলামী ব্যাংক ২০১৯ সালের ব্যবসায়ও লোকসান করেছে। ফলে এবার শেয়ারহোল্ডারদের কোনো ধরনের লভ্যাংশ না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যাংকটির পরিচালনাপর্ষদ।

সমাপ্ত হিসাব বছরে ব্যাংকটি শেয়ারপ্রতি ৬৪ পয়সা লোকসান করেছে। কোম্পানিটির সম্পদ মূল্যও ঋণাত্মক অবস্থায় রয়েছে। প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে সম্পদের মূল্য দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১৭ টাকা ১১ পয়সা।

এমএএস/এমএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]