আমিরাতের পারমাণবিক চুল্লি কিভাবে দেখছে প্রতিবেশীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩৩ এএম, ০৩ আগস্ট ২০২০

আরব আমিরাতের বারাকাহ পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কার্যক্রম শুরুর মধ্য দিয়ে আরব বিশ্বের প্রথম কোনো দেশে পারমাণবিক শক্তিকেন্দ্রের সূচনা ঘটলো। ওই অঞ্চলে এর রাজনৈতিক প্রভাব পড়বে যথেষ্ট। কারণ, কাতার এবং ইরানের গভীর সন্দেহ যে আমিরাতের মূল লক্ষ্য পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি।

আবার পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য তোড়জোড় শুরু হয়েছে সৌদি আরব, মিশর এবং এমনকি জর্ডানেও।

২০১২ সালে ২০ বিলিয়ন (দুই হাজার কোটি) ডলারের এই প্রকল্প হাতে নেওয়ার পর থেকেই এর যৌক্তিকতা, ঝুঁকি এবং উদ্দেশ্য নিয়ে উপসাগরীয় প্রতিবেশীদের মধ্যে তো বটেই, আন্তর্জাতিক মহলেও সন্দেহ-বিতর্ক চলছে।

কাতারের আপত্তি কোথায়
আগে থেকেই কাতার বলে আসছে, ওই চুল্লিতে কোনো দুর্ঘটনা হলে তেজস্ক্রিয় উপাদান ১৩ ঘণ্টার মধ্যে তাদের রাজধানী দোহায় চলে আসবে। অবশ্য কেন্দ্রের কার্যক্রম শুরুর পর এখনও আনুষ্ঠানকিভাবে কোনো প্রতিবাদ তারা করেনি। এই কেন্দ্রের ওপর শুরু থেকেই নজর রাখছেন পারমাণবিক শক্তি বিষয়ে বিশ্বের শীর্ষ একজন বিশেষজ্ঞ পল ডর্ফম্যান। মার্চে প্রকাশিত একটি বিশ্লেষণে তিনি লেখেন যে মধ্যপ্রাচ্যের বর্তমান বাস্তবতায় এই প্রকল্প নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হবেই কারণ পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির সুযোগ করে দেয়। ইউএই-র এই পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি ইতিমধ্যেই অস্থিতিশীল একটি এলাকাকে আরো অস্থিতিশীল করে তুলবে।

তবে আমিরাত অবশ্য বলে আসছে, উদ্বেগ উৎকণ্ঠার কোনো কারণ নেই, তারা শুধুই তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে চাইছে। তবে আমিরাতের এই প্রতিশ্রুতিতে ইরান কাতারের মতো দেশগুলোর ভরসা নেই বলেই মনে করা হয়।

বাতাস (উইন্ড এনার্জি) এবং সূর্যকে কাজে লাগিয়ে (সোলার এনার্জি) লাগিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের অসামান্য সুযোগ যেখানে ইউএই‘র রয়েছে, সেখানে এত পয়সা বিনিয়োগ করে, চরম ঝুঁকিপূর্ণ এক ভূ-রাজনৈতিক আবহের মধ্যে পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের পথে কেন দেশটি যাচ্ছে - অনেক বিশেষজ্ঞকেই সে বিষয়টি ভাবাচ্ছে।

আবার সম্ভাব্য কোনো পারমাণবিক দুর্ঘটনায় প্রতিবেশী দেশগুলো দূষণের শিকার হলে তার দায় কে নেবে, এ সম্পর্কে উপসাগরীয় অঞ্চলে কোনো চুক্তি এখনও নেই। এটি কাতারকে উদ্বিগ্ন করেছে।

সূত্র : বিবিসি বাংলা।

এনএফ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]