ইজেনারেশনের আইপিও অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০০ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০২০

ইজেনারেশন লিমিটেডের প্রাথমিক গণ প্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদন করেছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বুধবার বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিশন সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানিয়েছেন।

তিনি জানান, কোম্পানিটি আইপিওতে ১ কোটি ৫০ লাখ সাধারণ শেয়ার ছাড়বে। প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা। আইপিও’র মাধ্যমে কোম্পানিটি পুঁজিবাজার থেকে ১৫ কোটি টাকা পুঁজি উত্তোলন করবে।

পুঁজিবাজার থেকে উত্তোলন করা টাকা কোম্পানিটি ডিজিটাল প্ল্যাটফরম সল্যুশন, নতুন বাজার উন্নয়ন, আইওটি-ভিত্তিক সল্যুশন এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে। কোম্পানিটিকে পুঁজিবাজারে আনতে ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এনআরবি ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

বিএসইসি জানিয়েছে, ইজেনারেশনের ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৮২ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) রয়েছে ২০ টাকা ৫৬ পয়সা।

বিএসইসি আরও জানায়, কোম্পানিটির সাধারণ শেয়ার ক্রয়ের জন্য ইলেকট্রনিক সাবস্ক্রিপশন সিস্টেমে অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক যোগ্য বিনিয়োগকারীদের, ইলেকট্রনিক সাবস্ক্রিপশন সিস্টেমের মাধ্যমে সাধারণ শেয়ারের চাঁদা গ্রহণ শুরুর পাঁচ কার্যদিবস আগে তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজে বাজারমূল্যে কমপক্ষে ১ কোটি টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে। তবে যোগ্য বিনিয়োগকারীদের মধ্যে স্বীকৃত পেনশন ফান্ড এবং স্বীকৃত প্রভিডেন্ড ফান্ডের ক্ষেত্রে তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজে বাজারমূল্যে ৫০ লাখ টাকা বিনিয়োগ থাকতে হবে।

সেই সঙ্গে বিএসইসি এই আইপিও অনুমোনের ক্ষেত্রে আরও শর্তজুড়ে দিয়েছে, আইপিও চাঁদা গ্রহণ ২০২১ সালের জানুয়ারিতে হবে। বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে এটা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিএসইসির মুখপাত্র।

এমএএস/এমএসএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]