কমেছে আলু-টমেটোর দাম, পেঁয়াজের কেজি ৪০

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:১৬ এএম, ১৫ জানুয়ারি ২০২১

বাজারে ভালো মানের নতুন আলু ও পাকা টমেটোর সরবরাহ বাড়ায় এ দুটি পণ্যের দাম কমেছে। ২০ টাকা কেজি দরেই পাওয়া যাচ্ছে নতুন আলু ও দেশি পাকা টমেটো। ফলে ক্রেতাদের মধ্যে স্বস্তি দেখা দিয়েছে।

কিছুদিন আগে সবজির দাম নিয়ে হা হুতাশ করছিলেন ক্রেতারা। তবে এখন দাম কমে আসায় কিছুটা স্বস্তি এসেছে। কারণ বেশিরভাগ সবজি এখন ৩০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। এর সঙ্গে পেঁয়াজের দামও ক্রেতাদের স্বস্তি দিচ্ছে।

বিক্রেতারা বলছেন, বাজারে এখন সব ধরনের শীতের সবজি ভরপুর। ফুলকপি, বাঁধাকপি, শালগম, মুলা, বেগুন, পাকা টমেটো কোনো কিছুর কমতি নেই। দিন দিন এসব সবজির সরবরাহ বাড়ছে। ফলে দাম কমছে। সামনে দাম আরও কমবে।

শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা। দুই কেজি নিলে কোনো কোনো বিক্রেতা ৭৫ টাকা রাখছেন। অথচ কিছুদিন আগেই দেশি পেঁয়াজের কেজি ছিল ৭০ টাকা।

পেঁয়াজের দামের বিষয়ে কারওয়ান বাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী নোয়াব আলী বলেন, বাজারে এখন দেশি পেঁয়াজের অভাব নেই। আবার ভারতও পেঁয়াজ দিচ্ছে। কিন্তু ভারতের পেঁয়াজের প্রতি মানুষের আগ্রহ নেই। কারণ দেশি পেঁয়াজ এখন কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা পাইকারিতে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করছি ৩৫ টাকা। এখন দিন দিন বাজারে ভালোমানের দেশি পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়বে। সুতরাং সামনে পেঁয়াজের দাম আরও কমতে পারে।

রামপুরার ব্যবসায়ী মো. আজম বলেন, ভালো মানের দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা। আর আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা কেজি। সবাই দেশি পেঁয়াজ কিনছেন। আমদানি করা পেঁয়াজের চাহিদা নেই।

এদিকে কিছুদিন আগে ৪০-৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া নতুন আলু এখন মানভেদে ২০-২৫ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। সবচেয়ে ভালো মানের নতুন আলু কোনো কোনো বিক্রেতা দুই কেজি ৪৫ টাকায় বিক্রি করছেন।

মালিবাগ হাজীপাড়ার ব্যবসায়ী নূর আলী বলেন, কিছুদিন আগেও এক কেজি নতুন আলু ৫০ টাকা কেজি বিক্রি করেছি। এখন ৪৫ টাকা দিয়ে দুই কেজি আলু পাওয়া যাচ্ছে। এই আলু আগের চেয়ে অনেক বড় এবং মানও ভালো। আগে যে সাইজের আলু ৫০ টাকা কেজি ছিল এখন তা ১৮-২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

আলু-পেঁয়াজের মতো স্বস্তি দিচ্ছে পাকা টমেটো। কিছুদিন আগে পাকা টমেটোর কেজি ছিল ১০০ টাকার ওপরে। এখন তার থেকে ভালো মানের পাকা টমেটো ২০-৩০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে।

স্বস্তি দিচ্ছে অন্যান্য সবজির দামও। শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৪০ টাকা। ফুলকপি ও বাঁধাকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকা। এছাড়া মুলা ১০ থেকে ১৫ টাকা, গাজর ৩০ থেকে ৫০ টাকা, বেগুন ২০ থেকে ৩০ টাকা, উস্তা ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। ৪০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে বড় লাউ।

আলু, পেঁয়াজ, টমেটোর দামে স্বস্তি প্রকাশ করে খিলগাঁওয়ের বাসিন্দা আমির হোসেন বলেন, সবজির দাম নিয়ে যে অশান্তি ছিল এখন তা আর নেই। টমেটোর কেজি ২৫ টাকা কিছুদিন আগে এটা কল্পনাও করা যেত না। শুধু কি টমেটো, সবকিছুর দাম ছিল অস্বাভাবিক। সবজির দাম শুনলেই মাথা গরম হয়ে যেত। কিন্তু এখন সব ধরনের সবজি কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।

কারওয়ান বাজারে সবজি কিনতে আসা ইদ্রিস আলী বলেন, ফুলকপি ১০ টাকা, বাঁধাকপি ১৫ টাকা, শিম ২০ টাকা, পাকা টমেটো ২০ টাকা কেজি— সবজির এমন দাম হবে কিছুদিন আগে ভাবাই যায়নি। বেশিরভাগ সবজির কেজি একশ টাকার কাছাকাছি ছিল। এখন ১০০ টাকা দিয়ে ব্যাগ ভরে বাজার করা যায়।

মালিবাগ হাজীপাড়া থেকে বাজার করা আলেয়া বেগম বলেন, কিছুদিন আগেই এক সোয়া, আধা কেজি করে সবজি কিনতাম। এখন সবজির দাম কমেছে। পছন্দ মতো সবজি কিনে তৃপ্তি করে খেতে পাচ্ছি। আমরা কম দামে বেঁচে থাকার পণ্য কিনতে পারলেই খুশি।

এমএএস/এমএসএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]