এক নজরে ১৩ কোম্পানির তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক চিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:০২ পিএম, ০৯ মে ২০২১

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১৩টি কোম্পানি রোববার (৯ মে) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মাধ্যমে প্রান্তিক আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এই কোম্পানিগুলো আর্থিক প্রতিবেদনে চলমান হিসাব বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক অবস্থা তুলে ধরেছে।

কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালস, প্রিমিয়ার সিমেন্ট, অ্যাপেক্স ফুড, বিডি থাই, এনভয় টেক্সটাইল, আর্গন ডেনিম, এভিন্স টেক্সটাইল, আজিজ পাইপ, কোহিনুর কেমিক্যাল, দুলামিয়া কটন, স্কয়ার টেক্সটাইল, ফারইস্ট নিটিং এবং অ্যাপেক্স স্পিনিং।

সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালস

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ৩২ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩০ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ৭৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৮০ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ২১ টাকা ৮০ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ২১ টাকা ৬৪ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ১ টাকা ৭৯ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ২১ পয়সা।

প্রিমিয়ার সিমেন্ট

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৫৬ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৮ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ৪ টাকা ৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৩৪ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ৭৭ টাকা ৭২ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ৪৯ টাকা ৭৪ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ৫ টাকা ৩৪ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ২৫ পয়সা।

অ্যাপেক্স ফুড

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ৫৩ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি ৫ টাকা ২৪ পয়সা লোকসান হয়। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ২৩ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান হয় ৪ টাকা ৫৮ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ১২০ টাকা ৩৪ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ১২০ টাকা ৬৩ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ৪৪ টাকা ৬৯ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১১ টাকা ৬৬ পয়সা।

বিডি থাই

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ৪১ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৬ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৩ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৬ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ২৭ টাকা ৫৬ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ২৬ টাকা ৮০ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ১৩ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ঋণাত্মক ৯পয়সা।

এনভয় টেক্সটাইল

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ২১ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৯১ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ৫৮ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৬ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ৩৭ টাকা ৯০ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ৩৮ টাকা ৪৩ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ৪ টাকা ৪৮ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪ টাকা ২ পয়সা।

আর্গন ডেনিম

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ৪৫ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৯ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৮ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৬৭ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ২৬ টাকা ৫৩ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ২৭ টাকা ২১ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ৪৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ৪৫ পয়সা।

ইভিন্স টেক্সটাইল

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ১৬ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১৪ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয় ৩৪ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৭৪ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ১৩ টাকা ৫২ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ২ টাকা ১৬ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৮৫ পয়সা।

আজিজ পাইপ

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৩৭ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয় ৫ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৪৭ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয় ২৬ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১৪ টাকা ৭৬ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ঋণাত্মক ১৪ টাকা ২২ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ১৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭ টাকা ৫৫ পয়সা।

কোহিনুর কেমিক্যাল

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৬৯ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৫৪ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ৮ টাকা ১৮ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৫ টাকা ২৪ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ৫২ টাকা ২১ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ৪২ টাকা ৫৯ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ১৫ টাকা ৮২ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১১ টাকা ১০ পয়সা।

দুলামিয়া কটন

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১৩ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয় ১৫ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৪৬ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয় ৪৫ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ৩৬ টাকা ৭১ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ঋণাত্মক ৩৬ টাকা ৪৪ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ৬৫ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ঋণাত্মক ৪ টাকা ২৮ পয়সা।

স্কয়ার টেক্সটাইল

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৫ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩৫ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৮৪ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ১৯ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ৩৭ টাকা ১৩ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ৩৬ টাকা ২৯ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ৪ টাকা ১৪ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ২২ পয়সা।

ফারইস্ট নিটিং

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ২০ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২২ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ৩৩ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩৪ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ১৯ টাকা ২ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ১৯ টাকা ৩৬ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১ টাকা ৫৫ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭৫ পয়সা।

আপেক্স স্পিনিং

চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ইপিএস হয়েছে ৭৬ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭২ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৫১ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২ টাকা ১৯ পয়সা।

শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য চলতি বছরের মার্চ শেষে দাঁড়িয়েছে ৫৫ টাকা ১৯ পয়সা, যা ২০২০ সালের জুন শেষে ছিল ৫৪ টাকা ১৭ পয়সা। আর ২০২০ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ সময়ে শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা ৫৩ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭ টাকা ৭ পয়সা।

এমএএস/ইএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]