ছয় টাকা ভ্যাট দিয়ে জিতলেন লাখ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০০ পিএম, ১৫ জুলাই ২০২১

ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) ব্যবহার করে খুচরা কেনাকাটায় মাত্র ছয় টাকা ভ্যাট দিয়ে লটারিতে এক লাখ টাকা জিতেছেন রাজধানীর অ্যালুমিনিয়াম ব্যবসায়ী ইমাম উদ্দিন।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) দুপুরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ীর হাতে চেক তুলে দেন।

এনবিআর সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে কমিশনার এস এম হুমায়ুন কবীরসহ প্রতিষ্ঠানটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) ব্যবহার করে খুচরা কেনাকাটায় ভ্যাট পরিশোধকারী ক্রেতাকে পুরস্কার দিতে লটারির আয়োজন করে এনবিআর।

প্রথম ৫টি লটারিতে প্রথম পুরস্কার জেতা দাবিদারের সন্ধান না পাওয়ায় ষষ্ঠ লটারির আয়োজন করা হয়। অবশেষে ষষ্ঠ লটারিতে প্রথম হন অ্যালুমিনিয়াম ব্যবসায়ী ইমাম উদ্দিন।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, পাঁচ মাস ধরে ভ্যাট প্রদানকারীদের পুরস্কারের ঘোষণা দেয়া হলেও এবারই প্রথম আমরা প্রথম পুরস্কার বিজয়ীর দাবিদার পেয়েছি। অন্য লটারিগুলোতে আগে অনেকে পুরস্কার পেলেও প্রথম পুরস্কার দাবিদার না পাওয়ায় তা দেয়া সম্ভব হয়নি। ফলে প্রথম আমরা এক লাখ টাকার প্রথম পুরস্কার বিজয়ীর সন্ধান পেয়ে তার হাতে লটারির পুরস্কার তুলে দিতে পেরে আনন্দিত।

তিনি বলেন, জনগণ যাতে সহজেই ভ্যাট দিতে পারেন, সেজন্য আমার ইএফডিএমএস সিস্টেমের মাধ্যমে ভ্যাট নেয়া শুরু করেছি। ইতোমধ্যে আমরা নন-এসি দোকানের ক্ষেত্রে সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাটের পরিবর্তে ৫ শতাংশ এবং এসি প্রতিষ্ঠানের ১৫ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ ভ্যাট নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রথম পুরস্কার পাওয়া ইমাম উদ্দিন জানান, গত ২০ জুন রাজধানীর চকবাজার এলাকার আমানিয়া হোটেলে ৭৯ টাকার নাশতা খেয়ে পাঁচ টাকা ৯৩ পয়সা ভ্যাটসহ ৮৫ টাকা বিল পরিশোধ করেন তিনি। সেসময় তিনি দোকানদার থেকে ইনভয়েজ বা ভ্যাট চালান সংগ্রহ করেন।

তিনি বলেন, গত ৫ জুলাই আগের এক মাসের চালানের ওপর লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। লটারিতে আমি প্রথম পুরস্কার বিজয়ী হয়েছি বলে জানতে পারি। পরে আমি এনবিআরের ওয়েবসাইট ও হোটেলে টানানো ফলাফল দেখে পুরস্কারের বিষয়টি নিশ্চিত হই।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীসহ সারাদেশের দোকান ও শপিংমলে প্রায় চার হাজার ইএফডি মেশিন বসিয়েছে এনবিআর। চলতি বছর প্রায় ১০ হাজার ইএফডি যন্ত্র বসাতে চায় এনবিআর।

এসএম/এএএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]