সঙ্কট কাটাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহযোগিতা চাইলো বিজিএমইএ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:০৮ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১

 

কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে সৃষ্ট নজিরবিহীন সঙ্কট এবং পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে সহযোগিতা চেয়েছে তৈরি পোশাক মালিক ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ।

বিজিএমইএ’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এস এম মান্নানের (কচি) নেতৃত্বে বিজিএমইএ’র একটি প্রতিনিধিদল মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংক ভবনে গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে এ সহযোগিতা চায়।

বিজিএমইএ প্রতিনিধিদলে ছিলেন সাবেক সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মো. শহিদউল্লাহ আজিম, সহ-সভাপতি (অর্থ) খন্দকার রফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মো. নাসির উদ্দিন, সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী, পরিচালক আসিফ আশরাফ, পরিচালক মো. খসরু চৌধুরী, পরিচালক রাজিব চৌধুরী, পরিচালক মো. ইমরানুর রহমান ও পরিচালক মোহাম্মদ মেরাজ-ই-মোস্তফা (কায়সার)।

এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমান, ডেপুটি গভর্নর আবু ফরাহ মো. নাছের ও উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিজিএমইএ প্রতিনিধিরা বলেন, করোনা মহামারিতে পোশাক শিল্প একটি ক্রান্তিলগ্ন অতিক্রম করছে। এ অবস্থায় পোশাক শিল্পের উদ্যোক্তারা অর্থনীতির চাকা সচল রাখা এবং প্রতিকূল পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। উদ্যোক্তারা মনে করেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে পোশাক শিল্প সংক্রান্ত ইস্যুগুলো সহজীকরণের উদ্যোগ নেওয়া হলে তা শিল্পকে ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা করবে।

বিজিএমইএ প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে যেসব সহযোগিতা চেয়েছে তার মধ্যে রয়েছে-

>> কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা গ্রুপের যে কোনো একটি প্রতিষ্ঠানের ঋণ খেলাপীর কারণে সহযোগী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের চলমান ঋণ বন্ধ না করে খেলাপী ঋণ পুনঃতফসিলিকরণের সুযোগ দিয়ে ঋণ সুবিধা বহাল রাখার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করা।

>> সব প্রণোদনার জন্য ৩০ শতাংশ দেশীয় মূল্য সংযোজনের নিয়ম রেখে ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক জারীকৃত সার্কুলার সংশোধন করা। কারণ, এ শর্তটি আরোপ করার ফলে ওভেন শিল্প বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং নীট শিল্পও কিছু ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে।

>> বর্তমান সঙ্কটময় সময়ে তৈরি পোশাক রপ্তানি শিল্পকে টিকিয়ে রাখার নিমিত্তে শ্রমিক কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য প্রদত্ত ঋণ পরিশোধের কিস্তির সংখ্যা ১৮টির পরিবর্তে ৩৬টি করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা।

এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, পোশাক শিল্প জাতীয় অর্থনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। এই শিল্পকে সম্ভাব্য সব সহযোগিতা প্রদানে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বিজিএমইএ প্রতিনিধিদলের প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে যেগুলো যৌক্তিক, সেগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক গুরুত্ব সহকারে পর্যালোচনা করবে। আর যেগুলো বিষয়ে সহযোগিতা প্রদান করা সম্ভব হবে, সেসব বিষয়ে সহযোগিতা প্রদানের জন্য ব্যাংক উদ্যোগ গ্রহণ করবে।

ইএআর/এমএইচআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]