ঢাকা-পায়রা বন্দর রেলপথ নির্মাণে সৌদিকে অর্থায়নের অনুরোধ

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:১১ এএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

ঢাকা থেকে পায়রা বন্দর পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণে সৌদি আরবকে বিনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। সৌদির পরিবহনমন্ত্রী সালেহ আল জাসের সঙ্গে বৈঠক করে সালমান এফ রহমান এ অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের পরিবহন খাতে সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা যেতে পারে। এ সমঝোতা স্মারকের অধীনে দক্ষতা বিনিময়, প্রশিক্ষণ ও সহযোগিতার সম্ভাব্য ক্ষেত্রগুলো অনুসন্ধান করে দেখা যেতে পারে। এসময় সৌদির পরিবহনমন্ত্রী তার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সৌদি সফররত সালমান এফ রহমান এরপর দেশটির বিনিয়োগমন্ত্রী খালিদ আল ফালিহের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে তিনি বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে বর্তমান সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন। পাশাপাশি সৌদি বিনিয়োগকারীদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্ধারণের প্রস্তাব দেন। সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রস্তাবকে স্বাগত জানান।

বাংলাদেশে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ রয়েছে উল্লেখ করে দেশটির বিনিয়োগমন্ত্রী খালিদ আল ফালিহ বলেন, সৌদি আরবের বাংলাদেশে আরও বেশি বিনিয়োগের সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রীকে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্ব ব্যবস্থায় সৌদি বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে খসড়া সমঝোতা স্মারক চূড়ান্ত করার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হলে বাংলাদেশের অবকাঠামোসহ বিভিন্ন খাতে সৌদি বিনিয়োগের সুযোগ প্রসারিত হবে। এসময় সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রী জানান, সমঝোতা স্মারক চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে ও তা দ্রুত স্বাক্ষর হবে।

সালমান এফ রহমান দু’দেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রতিনিধি দল বিনিময়ের গুরুত্ব তুলে ধরে সৌদি মন্ত্রীকে আগামী নভেম্বরের ২৮ ও ২৯ তারিখ বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলনে যোগদানের অনুরোধ জানালে মন্ত্রী তা সাদরে গ্রহণ করেন।

এছাড়া, সালমান এফ রহমান রিয়াদ চেম্বার অব কমার্সের সঙ্গেও বৈঠক করেন। তখন তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সৌদি আরবে সরকারি সফরের মাধ্যমে বাংলাদেশ-সৌদি সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের নতুন দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। বাংলাদেশ সৌদি বিনিয়োগকারীদের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সব সহযোগিতা নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা বাংলাদেশ-সৌদির মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধি ও বাংলাদেশে সেদেশের বিনিয়োগের অপার সম্ভাবনা রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। বর্তমানে সৌদির সঙ্গে বাংলাদেশের এক দশমিক তিন বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বাণিজ্য হয়ে থাকে উল্লেখ করে তা আরও বাড়ানোর ওপর জোর দেন।

বাংলাদেশের বিশাল অভ্যন্তরীণ বাজার রয়েছে উল্লেখ করে সালমান এফ রহমান বলেন, ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা এখনো অব্যাহত রয়েছে, যা বাংলাদেশকে রপ্তানি সুবিধা দিচ্ছে।

উপদেষ্টা দু’দেশের চেম্বার কর্মকর্তাদের পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য দ্বিপাক্ষিক সফর ও বৈঠকের ওপর গুরুত্ব দেন। বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের সঙ্গে সৌদি আরবের সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে তিনি অনুরোধ জানান।

পাশাপাশি উপদেষ্টা দু’দেশের চেম্বার অব কমার্সের মধ্যে ২০০৫ সালে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকটি সংশোধন করে যুগোপযোগী করার প্রস্তাব দিলে সৌদি ফেডারেশন অব চেম্বার তাদের আগ্রহ প্রকাশ করেন। বৈঠকে উপস্থিত বাংলাদেশে বিনিয়োগকারী সৌদি কোম্পানিগুলো বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের সভাগুলোতে সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার) উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের সদস্য বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন ও বাংলাদেশ পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) কর্তৃপক্ষের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা আফরোজসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সৌদি চেম্বারের সঙ্গে বৈঠকের সময় বাংলাদেশ থেকে আগত ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

এআরএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]