আবারও ডেল্টা লাইফের প্রশাসক বদল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:২৯ পিএম, ১৪ অক্টোবর ২০২১

অনিয়মের অভিযোগ তুলে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সে প্রশাসক নিয়োগ দেয়া বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)।

প্রথমে মাসিক ৪ লাখ টাকা সম্মানীতে আইডিআরএ’র সাবেক সদস্য সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লাকে প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। তবে চার মাস না যেতেই গত জুনে তার নিয়োগ বাতিল করে নতুন প্রশাসক নিয়োগ দেয়া হয় কোম্পানিটিতে।

এ দফায় প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পান সাবেক যুগ্ম সচিব প্রফেসর মো. রফিকুল ইসলাম। তার সম্মানীও সুলতান-উল-আবেদীনের মতো রাখা হয়। তবে গত ১০ অক্টোবর ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে প্রশাসক পদ থকে পদত্যাগ করেন মো. রফিকুল ইসলাম। ফলে বিমা কোম্পানিটিতে আবারও নতুন প্রশাসক নিয়োগ দিয়েছে আইডিআরএ।

এ দফায় প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন সাবেক সচিব ও আইডিআরএ’র সাবেক সদস্য মো. কুদ্দুস খান। নতুন প্রশাসকের সম্মানী ৫০ হাজার টাকা বাড়িয়ে সাড়ে চার লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ১৩ অক্টোবর আইডিআরএ থেকে কুদ্দুস খানকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, আপনার মাসিক সম্মানী সর্বমোট ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হলো। উৎসব ভাতা মোট সম্মানীর ৬০ শতাংশ প্রাপ্ত হবেন। প্রশাসক ডেল্টা লাইফের কার্যক্রম ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে সর্বাত্মক মিতব্যয়িতা ও কর্মদক্ষতার সঙ্গে বিমা আইন ২০১০ অনুযায়ী রুটিন কার্যক্রম পরিচলনা করবেন।

প্রশাসক শিগগির নিয়োজিত অডিট ফার্ম এবং প্রয়োজনে দেশি বা বিদেশি একচুয়ারিয়াল ফার্ম দিয়ে ২০২১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোম্পানির নিরীক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন করবেন- বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলন করে ডেল্টা লাইফের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, আইডিআরএ চেয়ারম্যান ড. এম. মোশাররফ হোসেন তাদের কাছে ঘুস দাবি করেছেন। সেই সঙ্গে আইডিআরএ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিদ্বেষপূর্ণ আচরণেরও অভিযোগ করে প্রতিষ্ঠানটি।

সংবাদ সম্মেলনে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আদিবা রহমানের উপস্থিতিতে লিখিত বক্তব্যে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক চৌধুরী কামরুল আহসান অভিযোগ করে বলেন, আইডিআরএ বর্তমান চেয়ারম্যান যিনি এক সময় ডেল্টা লাইফের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছিলেন। এ জন্য উদ্দেশ্যমূলকভাবে ডেল্টা লাইফের ২০১৯ সালের একচ্যুরিয়াল ভ্যালুয়েশনের বেসিস অনুমোদন দেয়া হয়নি। মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তার নবায়ন অনুমোদন না দিয়ে এবং কোম্পানিকে নানা অজুহাতে অন্যায়ভাবে জরিমানা আরোপের হুমকি দিচ্ছেন আইডিআরএ চেয়ারম্যান। এছাড়া কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ বহিষ্কার করে প্রশাসক নিয়োগেরও হুমকি দিচ্ছেন।

চাঁদা দাবির অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, বিভিন্ন বিষয় সমাধানের জন্য বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করতে গেলে তিনি কোম্পানির কাছে প্রথমে ২ কোটি, পরে ১ কোটি ও সর্বশেষ ৫০ লাখ টাকা উৎকোচ দাবি করেন। এ সংক্রান্ত অডিও ক্লিপ ও ট্রান্সক্রিপটি দুর্নীতি দমন কমিশনে অভিযোগ আকারে দাখিল করা হয়েছে। পরে এ বিষয়ে হাইকোর্ট বিভাগ অধিকতর তদন্তের আদেশ দিয়েছেন।

ডেল্টা লাইফ থেকে এ ধরনের অভিযোগ তোলার পর ১১ ফেব্রয়ারি কোম্পানিটিতে সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লাকে প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেয় আইডিআরএ। প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লার কিছু কার্যক্রম নিয়ে বিতর্কের জন্ম দেয়। বিশেষ করে কয়েকজন কর্মীকে অস্বাভাবিক পদোন্নতি ও বদলির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গত ৬ মার্চ ‘বদলি-পদোন্নতি, উকিল নোটিশে ডেল্টা লাইফে ভয়ার্ত পরিবেশ’ শিরোনামে জাগো নিউজে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

এ পরিস্থিতিতে মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপে ৯ জুন সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লার নিয়োগ বাতিল করে মো. রফিকুল ইসলামকে ডেল্টা লাইফে নতুন প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। সেই সঙ্গে সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লার প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালনকালীন বিশেষ অডিট (নিরীক্ষা) করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লার নিয়োগ বাতিল সংক্রান্ত আইডিআরএ’র চিঠিতে বলা হয়, সর্বাত্মক মিতব্যয়িতা ও কর্মদক্ষতার সাথে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের কার্যক্রম ব্যবস্থাপনার স্বার্থে বিমা আইন ২০১০ এর ৯৫ (২) ধারা অনুযায়ী প্রশাসক হিসেবে আপনার নিযুক্তি বাতিল করা হলো।

এমএএস/এসএইচএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]