দুই হাজার কোটি টাকা মূলধন হারালো ডিএসই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪৩ পিএম, ১৫ অক্টোবর ২০২১

গেল সপ্তাহে কিছুটা মন্দার মধ্যে দিয়ে পার করেছে দেশের শেয়ারবাজার। এতে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন দুই হাজার কোটি টাকা কমেছে। সেইসঙ্গে কমেছে সবক’টি মূল্যসূচক ও লেনদেন।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৮০ হাজার ১১২ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৫ লাখ ৮২ হাজার ১২৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ গেল সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ২ হাজার ১২ কোটি টাকা।

অবশ্য এর আগে টানা তিন সপ্তাহ ডিএসইর বাজার মূলধন বাড়ে। আগের তিন সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বাড়ে ৭ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা। এ হিসেবে সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন বাড়ার পর দুই হাজার কোটি টাকা কমলো।

বাজার মূলধন বাড়া বা কমার অর্থ তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার ও ইউনিটের দাম সম্মেলিতভাবে ওই পরিমাণ বেড়েছে বা কমেছে। অর্থাৎ বাজার মূলধন বাড়লে বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ করা অর্থের পরিমাণ বেড়ে যায়। একইভাবে বাজার মূলধন কমলে বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ করা অর্থের পরিমাণ কমে যায়।

বাজার মূলধন কমার পাশাপাশি গেল সপ্তাহে ডিএসইতে যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে, কমেছে প্রায় তার দ্বিগুণ। সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ১২৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ২৩১টির। আর ২৩টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

এতে গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৯৯ দশমিক ৭০ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৩৬ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ১৩ দশমিক ৯৩ পয়েন্ট বা দশমিক ১৯ শতাংশ।

প্রধান মূল্যসূচকের পাশাপাশি গেল সপ্তাহে কমেছে ইসলামী শরিয়াহভিত্তিতে পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক। গত সপ্তাহজুড়ে সূচকটি কমেছে ২৮ দশমিক ৩৫ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ৩ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট বা দশমিক ২৩ শতাংশ।

অপরদিকে, বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচকও গত সপ্তাহে কমেছে। সপ্তাহজুড়ে এ সূচকটি কমেছে ৪৮ দশমিক ২৫ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ৫৬ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ১০ শতাংশ।

গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৮১২ কোটি ৪২ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ২ হাজার ৫৪৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন কমেছে ৭৩২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা বা ২৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৯ হাজার ৬২ কোটি ১১ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ১২ হাজার ৭২৪ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে ৩ হাজার ৬৬২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা বা ২৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশের শেয়ার। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫৮৪ কোটি ৩৮ লাখ ৬১ হাজার টাকা, যা মোট লেনদেনের ৬ দশমিক ৪৫ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ওরিয়ন ফার্মার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪৬৪ কোটি ৪৬ লাখ ৫৭ হাজার টাকা। ৪২১ কোটি ৩৭ লাখ ৫ হাজার টাকা লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে আইএফআইসি ব্যাংক।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- ফরচুন সুজ, বেক্সিমকো, পাওয়ার গ্রিড, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল এবং জিপিএইচ ইস্পাত।

এমএএস/এমএএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]