বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার পেলেন মহিউদ্দিন মোনেম

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৫৯ পিএম, ২৮ অক্টোবর ২০২১

‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার’ পেয়েছেন এ এস এম মহিউদ্দীন মোনেম। তিনি সার্ভিস ইঞ্জিন লিমিটেডের চেয়ারম্যান এবং আব্দুল মোনেম লিমিটেডের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) শিল্প মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ অ্যাওয়ার্ড তুলে দেওয়া হয়। বাংলাদেশের অন্যতম বিপিও সার্ভিস প্রতিষ্ঠান সার্ভিস ইঞ্জিন লিমিটেডের পক্ষে অ্যাওয়ার্ডটি গ্রহণ করেন তিনি।

সার্ভিস ইঞ্জিন লিমিটেড এক দশকেরও বেশি সময় ধরে দেশের কম্পিউটার ও সফটওয়্যার খাতে অবদান রেখে আসছে। আর্ন্তজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিজিটাল অ্যাডভারটাইজিং, মিডিয়া ও টেক সার্ভিস দেওয়া এ প্রতিষ্ঠানটি ২০০৬ সাল থেকে কাজ করে যাচ্ছে বিপিও সার্ভিসকে পোশাকশিল্পের বিকল্প বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের শিল্প হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে।

প্রতিষ্ঠানটি দক্ষতার সঙ্গে ডিজিটাল অ্যাড অপারেশন, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ক্রিয়েটিভ সার্ভিস, ডাটা সল্যুশন, মিডিয়া প্ল্যানিং ও কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স নিয়ে কাজ করছে। সার্ভিস ইঞ্জিন দক্ষ জনবল ও সঠিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে উদ্বোবনী মনোভাব নিয়ে খরচ নিয়ন্ত্রণ করে প্রজেক্ট তরান্বিত করে থাকে।

শুধু আর্ন্তজাতিক প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে অটোমেশন তৈরিতে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে থাকে এবং বাংলাদেশের পরিকল্পনা, তথ্য ও প্রযুক্তি, কৃষি, খাদ্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন আইটি বা আইটিএস প্রজেক্ট বাস্তবায়নের মাধ্যমে ডিজিটালাইজেশনে ভূমিকা রাখছে সার্ভিস ইঞ্জিন লিমিটেড।

বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটিতে এক হাজার দক্ষ তরুণ কাজ করছে, যারা অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে বিশাল ভূমিকা পালন করে আসছে। এ তরুণদের দক্ষ জনবল হিসেবে তৈরি করতে প্রতিষ্ঠানটি প্রতি বছর প্রায় পাঁচ মিলিয়ন ডলারের ওপরে বিনিয়োগ করে থাকে।

সার্ভিস ইঞ্জিন লিমিটেডের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব রাখায় এ এস এম মহিউদ্দিন মোনেম ছয় বার ন্যাশনাল এক্সপোর্ট ট্রফি অর্জন করেছেন। এছাড়া চার বার পেয়েছেন প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড, ছয় বার বেস্ট ট্যাক্স পেয়ার অ্যাওয়ার্ড এবং ৮ বার দেশের কমার্শিয়াল ইমপর্টেন্ট পারসন (সিআইপি) নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়াও ২০০৪ সাল থেকে এ এস এম মহিউদ্দীন মোনেম চেক প্রজাতন্ত্রের অনারারি কনসাল হিসেবে নিয়োজিত। -প্রেস বিজ্ঞপ্তি

এএএইচ/জিকেএস

আগের ড্যাপে কৃষিজমি কিংবা জলাশয় সংরক্ষণে কোনো উদ্যোগ ছিল না। এবার টিডিআর পলিসির (ট্রান্সফার অব ডেভেলপমেন্ট রাইটস) প্রস্তাব করেছি। এছাড়া ঢাকার ভেতরে ৫৬৬ কিলোমিটার নদীপথ নতুন করে ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা প্রস্তাবের পাশাপাশি সিএস এবং আরএস রেকর্ড অনুযায়ী খালগুলোকে পুনরুদ্ধার করে ঢাকার জলাবদ্ধতা দূর করার কৌশলও আছে নতুন ড্যাপে।

ড্যাপে পুরান ঢাকার বিভিন্ন সাইট চিহ্নিত করে ‘আরবান রিডেভেলপমেন্ট প্রকল্প’ নেওয়ার প্রস্তাব হয়েছে। এর মাধ্যমে এলাকাবাসীর মতামত নিয়ে অল্প জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণের মাধ্যমে পুরান ঢাকায় পরিকল্পিত নগরায়ন নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]